cosmetics-ad

এবার জর্ডানের কাছেও বড় ব্যবধানে হার

bd_football

স্ট্রাইকারদের ব্যর্থতা, দুর্বল ডিফেন্স এবং বিতর্কিত রেফারিংয়ে নিজেদের মাটিতে বড় ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ গোল হজম করার পর এবার মধ্যপ্রাচ্যের দল জর্ডানের সঙ্গে ৪-০ গোলে বিদ্ধস্ত হয় মামুনুলরা।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে এশিয়া অঞ্চলের বাছাইয়ের ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে শুরু থেকেই অগোছালো খেলা খেলতে থাকে বাংলাদেশ। প্রথম পাঁচ মিনিটেই দুটি ভালো সুযোগ পায় জর্ডান। গোলরক্ষকের দৃঢ়তায় সে যাত্রায় রক্ষা পায় বাংলাদেশ।

তবে ১৩ মিনিটে রেফারির বিতর্কিত সিদ্ধান্তে পিছিয়ে পড়ে বাংলাদেশ। ডি বক্সে বল মিশুর হাতে লাগলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান চাইনিজ তাইপের রেফারি ইউ মিং সান। আর তা থেকে লক্ষ্যভেদ করে দলকে এগিয়ে নেন আবদুল্লাহ দীব। তবে ১৮ মিনিটে সমতায় ফেরার সুবর্ণ সুযোগ হারায় বাংলাদেশ। মামুনুলের কর্নার থেকে ফাঁকায় হেড করেন ইয়াসিন। তার হেড বল বারের সামান্য উপর দিয়ে বাইরে চলে যায়।

৩১ মিনিটে আরও একটি সহজ সুযোগ হারায় বাংলাদেশ। ডান প্রান্তে জুয়েল রানা দুই জন ডিফেন্ডার এবং গোলরক্ষককে কাটিয়ে বল দেন এমিলিকে। কিন্তু বল ধরতে গিয়ে পিছলে পড়ে যান এই শেখ রাসেলের স্ট্রাইকার। ফলে বাংলাদেশ ব্যবধান কমানোর সহজ সুযোগ হারায়। বাংলাদেশ ব্যর্থ হলেও পরের মিনিটেই পাল্টা আক্রমণ থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করে জর্ডান। মুনথার আবু আমারার দুর্দান্ত শটে বল জালে জড়ান।

দুই গোলে পিছিয়ে থেকে আক্রমনের ধার বাড়ায় বাংলাদেশ। ম্যাচের সেরা সুযোগ পান জুয়েল রানা। এমিলির বাড়ানো বল থেকে গোলরক্ষককে একা পেয়েও বারের বাইরে মারেন মোহামেডানের তরুণ এই স্ট্রাইকার। ব্যবধান কমানোর এই সুবর্ণ সুযোগ হারানোয় দুই গোলে পিছিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বাংলাদেশ।

বিরতির পর নেমে কিছুটা গোছানো ফুটবল খেলতে থাকে বাংলাদেশ। বেশ কয়েকটি ভালো আক্রমণও করে তারা। তবে সে আক্রমণ থেকে কোন সুযোগ আদায় করতে ব্যর্থ হন মামুনুলরা। উল্টো ধারার বিপরীতে ৫৭ মিনিটে গোল খেয়ে বসে তারা। আবদুল্লাহ দীবের বাড়ানো বল থেকে দারুণ শটে বল জালে প্রবেশ করান রাজেই আয়েদ ফাদেল হাসান। দুই মিনিট পরেই আবার গোল আদায় করে নেয় জর্ডান। ইয়াসিন বাখেত একক প্রচেষ্টায় তিন জন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে দুর্দান্ত গোল করেন এই ফরোয়ার্ড।

চার গোলে পিছিয়ে থেকে বাংলাদেশ যেন আরও ঝিমিয়ে পরে। খেলোয়াড়দের ফিটনেসের অভাব ছিল চোখে পরার মত। এই সময়ে বেশ কিছু ভালো সুযোগ পায় সফরকারীরা। তবে প্রতিপক্ষ স্ট্রাইকারদের ব্যর্থতায় তা থেকে কোন গোল আদায় করে নিতে পারেনি জর্ডান। ৮০ মিনিটে আবারো ব্যবধান কমানোর ভালো সুযোগ নষ্ট করে এমিলিরা। ডান প্রান্ত থেকে আড়াআড়ি বাড়ানো বল এমিলির ধরতে ব্যর্থ হন। সেই বল ফাঁকায় পান বদলি খেলোয়াড় কমল।

তবে তার দুর্বল শট ফিরিয়ে দেন গোলরক্ষক আমের শাফি। পরের মিনিটে ভালো সুযোগ পান এমিলি। কিন্তু তার শট দৃঢ়তার সাথে ফিরিয়ে দেন গোলরক্ষক। এরপর জর্ডান আরও বেশ কিছু ভালো আক্রমণ করলেও তা থেকে গোল আদায় করতে না পারলে ৪-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সফরকারীরা।

এই হারে ‘বি’ গ্রুপে সবার নিচেই রইল বাংলাদেশ। চার ম্যাচে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ পয়েন্ট।

বাংলাদেশ দল : তপু বর্মন, ইয়াসিন খান, ইয়ামিন আহমেদ মুন্না, জামাল ভূঁইয়া, মামুনুল ইসলাম (অধিনায়ক), জাহিদ হাসান এমিলি, নাসিরুল ইসলাম, মোনায়েম খান রাজু, আতিকুর মিশু, জুয়েল রানা ও রাসেল মাহমুদ (গোলরক্ষক)।

জর্ডান দল : আমের শাফি, বাহা আব্দেল রহমান, মোন্থার আবু আমারা, ওডেই জাহরান, ইয়াসিন বাখেত, আবদাল্লাহ দীপ, ফাদেল হাসান, ইব্রাহিম জাওয়ারেহ, আনাস বানী ইয়াসিন, হামজা আদালাদরেহ ও মোহাম্মদ আল দেমরি।