sentbe-top

মালয়েশিয়ায় যুবক হত্যা : বাড়িতে মাতম

arifনওগাঁর রাণীনগর উপজেলার কাশিমপুর ইউপির মঙ্গলপাড়া গ্রামের আরিফ (২৪) নামে মালয়েশিয়া প্রবাসী এক যুবককে গলা কেটে হত্যার খবরে তার বাড়িতে এখন শুধুই শোকের মাতম।

ওই বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছে আত্মীয়স্বজন আর খবর পাওয়া এলাকার সাধারণ মানুষ। ছেলেহারা শোকের বেদনায় আরিফের বাবা-মা, ভাই-বোন কেঁদে কেঁদে শোকে এখন পাথর প্রায়। তবুও শোকাহত পরিবারের শেষ আশা সরকারি ব্যবস্থাপনায় ছেলের লাশ যেন বাংলাদেশে পৌঁছে।

এলাকাবাসী ও রানীনগর থানার ওসি আব্দুল লতিফ খান জানান, উপজেলার মঙ্গলপাড়া গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে আব্দুল আরিফ (২৪) বাবা-মার অভাবের সংসারে একটু স্বচ্ছলতা আনার জন্য কিছু জমি বিক্রি ও নগদ টাকা ধার-দেনা করে প্রায় দুই বছর আগে ৪ লাখ ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে সে মালয়েশিয়ায় যান।

যাওয়ার পর থেকে ভিসার চুক্তিমত একটি ফার্নিচার কারখানায় রংমিস্ত্রির সহকারী হিসেবে কাজ করেন। কাজের অভিজ্ঞতার আলোকে কারখানা কর্তৃপক্ষ বেতন ভাতা ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করে কয়েক মাস আগে ওই প্রতিষ্ঠানের সুপারভাইজারের দায়িত্ব দেন আরিফকে।

ইতিমধ্যে বেশকিছু টাকা পয়সা বাড়িতে পাঠালেও অসহায় বাবার ঋণের টাকা এখনও পরিশোধ করতে পারেননি। তবে পরিবারের ধারণা অল্প সময়ের মধ্যে আরিফ সুপারভাইজারের দায়িত্ব পাওয়ায় সে এরকম জঘন্য ঘটনার বলি হয়েছেন।

দুই ভাই এক বোনের মধ্যে তিনি মেজ। সংসারের কাজ-কর্ম করার তেমন অভ্যাস না থাকায় বাবার সঙ্গে অনেকটা জেদ করেই টাকা-পয়সা জোগাড় করে মালয়েশিয়ায় যান। সেখানে তার প্রতিবেশী চাচা আশাদুল ইসলাম (৪০) পাশের অন্য একটি কারখানায় কাজ করতেন এবং দুইজনই ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় বসবাস করতেন।

গত রোববার ভোরে আশাদুল মালয়েশিয়া থেকে তার স্ত্রী রুবিয়াকে ফোন করে জানান আরিফ যে বাসায় থাকতো রাতে কে বা কারা তাকে গলা কেটে হত্যা করেছে। এই খবর ছড়িয়ে পড়লে মঙ্গলপাড়া গ্রামে শোকের ছায়া নেমে আসে।

নিহত আরিফের বাবা আব্দুল হামিদ জানান, শনিবার রাত ৮টার দিকে আমার ছেলের সঙ্গে কথা হয়েছে সে ভাল আছে। রোববার সকালে জানতে পারি ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। তবে তার দাবি একটু দেরিতে হলেও রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায় যেন ছেলের লাশ বাড়িতে পৌঁছে।

স্থানীয় সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলম বলেন, আরিফ আমার এলাকার ছেলে। আমি ওই পরিবার থেকে জেনেছি তিনি মালয়েশিয়ায় কর্মরত অবস্থায় খুন হয়েছেন। কি প্রক্রিয়ায় তিনি বিদেশে যান পরিবারের কাছ থেকে তার কাগজপত্র পেলেই মালয়েশিয়া দূতাবাসের মাধ্যমে তার লাশ দেশে আনার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

রানীনগর থানার ওসি আব্দুল লতিফ খান জানান, নিহতের পরিবার চাইলে প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করা হবে।

sentbe-top