cosmetics-ad

আনুষ্ঠানিকভাবে দেউলিয়া ঘোষণা হানজিনকে

hanjin-3_0

দীর্ঘদিন কোটি কোটি ডলার ঋণের বোঝার সঙ্গে যুঝতে থাকা বিশ্বের সপ্তম বৃহৎ এবং দক্ষিণ কোরিয়ার বৃহৎ শিপিং কোম্পানি হানজিনের ওপর অবশেষে নেমে এল দেউলিয়াত্বের খড়্গ। এক সময়কার প্রভাবশালী এ কোম্পানিটিকে গতকাল দেউলিয়া ঘোষণা করেন সিউলের কেন্দ্রীয় জেলা আদালত।

পাওনাদাররা আর্থিক সহায়তা করতে অস্বীকৃতি জানানোয় ৫৩৭ কোটি ডলার ঋণের চাপে গত বছরের আগস্টে আদালতে দেউলিয়াত্বের আবেদন করে বিশ্বের সপ্তম বৃহত্ শিপিং কোম্পানি হানজিন। যার ফলে গোটা বিশ্বের বিভিন্ন বন্দরে প্রবেশের সুযোগ হারায় হানজিনের জাহাজ। চলতি মাসের শুরুতে সিউল আদালত কর্তৃক নিয়োগকৃত একটি অ্যাকাউন্টিং কোম্পানি জানায়, চলমান পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে হানজিনের মোট মূল্যের চেয়ে এর ঋণের পরিমাণ (লিকুইডেশন ভ্যালু) বেড়ে যাবে।

এক সময় দক্ষিণ কোরিয়ার শীর্ষ শিপিং কোম্পানি ছিল হানজিন। চীনা অর্থনীতির শ্লথ গতি, বৈশ্বিক বাণিজ্যে অতিমন্দা ও ছয় বছরে শিপিং শিল্পে সর্বোচ্চ পতন দেখা দেয়ায় দেউলিয়াত্বের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায় পারিবারিক মালিকানাধীন কোম্পানিটি। এছাড়া উচ্চপদস্থ নির্বাহীদের অব্যবস্থাপনাও হানজিনের পতনের অন্যতম প্রধান কারণ। ব্যবসা সম্বন্ধে কোনো ধরনের অভিজ্ঞতা না থাকলেও সাবেক মালিকের স্ত্রী ২০০৭ সালে ব্যবসার হাল ধরেন। তার অব্যবস্থপনাকে হানজিনের পতনের অন্যতম প্রধান কারণ বলে মনে করেন অনেকে।

বিপুল পরিমাণ ঋণ পরিশোধ করতে দেশ-বিদেশের অধিকাংশ সম্পদ বিক্রি করতে বাধ্য হয় হানজিন। সেসঙ্গে কোম্পানির দেড় হাজার কর্মীর সিংহভাগ বেকার বসে থাকে। হানজিনের এ পতন কন্টেইনার শিপিংয়ের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় মাপের দেউলিয়াত্বের ঘটনা। গত বছর হানজিনের দেউলিয়াত্ব আবেদনের খবর বৈশ্বিক শিপিং শিল্পে ব্যাপক বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করে। হানজিনের ১৪১টি জাহাজের অধিকাংশের বন্দরে প্রবেশাধিকার রদ করে যুক্তরাষ্ট্র-চীনসহ আরো অনেক দেশ। মূলত বন্দর সেবা মেটানোর মতো আর্থিক সঙ্গতি না থাকায় হানজিনের প্রবেশাধিকার রদ করে কর্তৃপক্ষ। যার ফলে সমুদ্রে আটকা পড়ে থাকে কোম্পানিটির দুই-তৃতীয়াংশ জাহাজ। এর মধ্যে কন্টেইনারবাহী একটি জাহাজ সিঙ্গাপুরে আটকা পড়ে। এতে আন্তর্জাতিক শিপিং শিল্পের পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় সিঙ্গাপুরের ব্যবসা খাত।

এদিকে গতকাল এক বিবৃতিতে আদালত জানান, হানজিন যাতে সঠিক ও ন্যায্য উপায়ে পাওনাদারদের ঋণ পরিশোধ করতে পারে, দেউলিয়াত্ব প্রক্রিয়ায় সে বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে। এর আগে ২ ফেব্রুয়ারি আদালত জানান, হানজিনকে আদালতের ব্যবস্থাপনায় রাখার চেয়ে দেউলিয়া ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার সিউলে হানজিনের তালিকাভুক্ত শেয়ার বেচাকেনা স্থগিত ছিল।