sentbe-top

ভুটানের জালে বাংলাদেশের ৮ গোল

bd-footballসামনে ভুটান-একটা ভয়ই যেন কাজ করেছিল গ্রুপ ম্যাচের আগে। ফয়সাল-মিরাজরা সে ভয় কাটিয়েছিলেন পাহাড়ি দেশটিকে ৩-০ গোলে হারিয়ে। বড়রা না পারলেও কিশোররা বুঝিয়ে দিয়েছিল ভুটান আহামরি কোনো দল নয়। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে বাংলাদেশ ফুটবলের সোনালি অতীতটাই ফিরিয়ে আনল সবুজ জার্সিধারী কিশোররা।

রোববার কাঠমান্ডুর হালচুক স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ চ্যাম্পিয়নশিপের তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে বাংলাদেশ ৮-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে ভুটানকে। লাল-সবুজ জার্সিধারী কিশোররা শিরোপা হারালেও সান্ত্বনা একটাই-এক টুর্নামেন্টে ভুটানকে দুইবার বিধ্বস্ত করা। এ জয় দুটিকে অনেকে দেখছেন মামুনুল-এমিলিদের দায়মুক্ত করা হিসেবেও।

বাংলাদেশ গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ৪-০ গোলে এবং দ্বিতীয় ম্যাচে ভুটানকে ৩-০ গোলে হারিয়ে গ্রুপসেরা হয়ে উঠেছিল সেমিফাইনালে। ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে বাংলাদেশ ৪-২ গোলে হেরে যায় স্বাগতিক নেপালের কাছে। তবে সব হারিয়ে বড় জয় নিয়েই ঘরে ফিরছে বাংলাদেশের কিশোররা।

গত বছর অক্টোবরে থিম্পুতে এশিয়ান কাপের প্লে-অফ ম্যাচে ভুটানের কাছে ৩-১ গোলে হেরে দেশের ফুটবলে কলঙ্কজনক অধ্যায় রচনা করেছিলেন মামুনুল-এমিলিরা। তারপর থেকেই একটা হাহাকার চলছিল বাংলাদেশের ফুটবলে। কিশোররা সাফের ট্রফি হাতছাড়া হলেও ভুটানকে ২ ম্যাচে ১১ গোল দিয়ে একটা স্বস্তির জায়গা ফিরে পেয়েছে বাংলাদেশের ফুটবল।

ভুটানকে বিধ্বস্ত করা ম্যাচে বাংলাদেশের জোড়া গোল করেছেন মিরাজ মোল্লা ও রাজা শেখ। বাকি ৪ গোল করেছেন ফয়সাল, আকাশ, ইয়াসির ও আরিফ। ১৮ মিনিটে ফয়সাল, ২০ মিনিটে রাজা শেখ ও ২৯ মিনিটে মিরাজ মোল্লা করলে বাংলাদেশ ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় বিরতিতে।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ব্যবধান ৪-০ করেন রাজা শেখ। ৫৮ মিনিটে মিরাজ নিজের দ্বিতীয় গোল করলে বাংলাদেশ এগোতে থাকে বড় জয়ের দিকে। ৬৯ মিনিটে আকাশ, ৭৯ মিনিটে ইয়াসির ও ৯০ মিনিটে আরিফের গোলে বাংলাদেশ নিশ্চিত করে ৮-০ ব্যবধানের বড় জয়।

sentbe-top