cosmetics-ad

কানাডা বর্তমান বিশ্বে ‘অন্যতম’ শ্রেষ্ঠ শিক্ষিত দেশ

বর্তমান বিশ্বে কানাডা অন্যতম শ্রেষ্ঠ শিক্ষিত দেশ। আর এই কৃতিত্বের দাবিদার প্রধানত অভিবাসীদের প্রাপ্য। নতুন আসা ইমিগ্রেন্টরা শুধু যে নিজেরাই উচ্চ শিক্ষিত তাই নয়, তারা কানাডায় আসার পর তাদের ছেলে-মেয়েদেরকেও উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলছেন। আর এ কারণেই ইমিগ্রেন্টদের মধ্যে উচ্চ শিক্ষার হার মূলধারার কানাডিয়ানদের তুলনায় বেশি। সম্প্রতি সরকারের এক অভ্যন্তরীণ অনুসন্ধানে এই তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

অর্গানাইজেশন ফর ইকনমিক কো-অপারেশন অ্যান্ড ডেভলাপমেন্ট, ইমিগ্রেশন অফ কানাডা, কানাডিয়ান স্টাডিজের তথ্য এবং জরিপ মোতাবেক টরন্টো স্টার নিউজের সূত্র ধরে এ খবর জানিয়েছে প্রবাসী কণ্ঠ।

অনুসন্ধানে দেখা গিয়েছে ইমিগ্রেন্ট পরিবারের ৩৬% ছেলে-মেয়ের (যাদের বয়স ২৫-৩৫ এর মধ্যে) ইউনিভার্সিটি ডিগ্রি রয়েছে। আর এই একই বয়সের মূলধারার কানাডিয়ান ছেলে-মেয়েদের মধ্যে ইউনিভার্সিটি ডিগ্রি রয়েছে ২৪% জনের।

সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ইমিগ্রেন্ট এসেছে যে কয়টি দেশ থেকে তার মধ্য আছে চীন ও ভারত। আর এই দেশগুলো থেকে আসা ইমিগ্রেন্টে পরিবারের ছেলে-মেয়েদের মধ্য ইউনিভার্সিটি ডিগ্রিধারীর সংখ্যা শতকরা ৫০ ভাগেরও বেশি। ফিলিপাইন থেকেও কানাডায় প্রচুর সংখ্যক ইমিগ্রেন্ট এসেছেন। ঐ সকল পরিবারের ছেলে-মেয়েদের মধ্য ইউনির্ভর্সিটি ডিগ্রিধারীর সংখ্যা শতকরা প্রায় ৩৩ ভাগ।

পশ্চিম ইউরোপ থেকে এসেছেন এমন ইমিগ্রেন্ট পরিবারের ছেলে-মেয়েদের মধ্যেও উচ্চ শিক্ষার হার মূলধারার কানাডিয়ান ছেলে-মেয়েদের তুলনায় বেশি। অনুসন্ধানে দেখা গেছে, ৩০ থেকে ৩৭ % পশ্চিম ইউরোপের ছেলে-মেয়ে ইউনিভার্সিটির ডিগ্রিধারী। এর পরের অবস্থানে আছে ল্যাটিন আমেরিকা ও ক্যারিবিয়ান অঞ্চল থেকে আসা ইমিগ্রেন্ট পরিবার। এই সকল পরিবারের ছেলে-মেয়েদের মধ্যে ইউনিভার্সিটি ডিগ্রিধারীর হার ২৩ থেকে ২৮%।

উল্লেখ্য যে, অর্গানাইজেশন ফর ইকনমিক কো-অপারেশন অ্যান্ড ডেভলাপমেন্টে কানাডাকে দ্বিতীয় স্থানের মর্যাদা দিয়েছে উচ্চ শিক্ষিতের দেশ হিসাবে। কানাডায় সার্বিকভাবে ৬০% অধিবাসীর পোস্ট-সেকেন্ডারি ডিগ্রি রয়েছে। প্রথম স্থানে আছে দক্ষিণ কোরিয়া। এই হিসাব ২০১৬ সালের। টপ টেনে এর পরের অবস্থানে (উপর থেকে নিচে) আছে জাপান, লিথুনিয়া, যুক্তরাজ্য, লুক্সেমবার্গ, অস্ট্রেলিয়া, সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে এবং ইউনাইটেড স্টেট অব আমেরিকা।

ইমিগ্রেশন কানাডার মুখপাত্র গার্নেট পিকট বলেন, কানাডার ইমিগ্রেশন পলিসির দীর্ঘ মেয়াদী পারফরমেন্স কি এবং কানাডায় ইমিগ্রেন্ট পরিবারের সন্তানেরা শিক্ষায় ও অর্থনীতিতে কতটুকু সাফল্য ও অবদান রাখছে তা দেখার জন্য এই অনুসন্ধান চালানো হয়।

অন্য এক অনুসন্ধানে দেখা গেছে ২০১১ থেকে ২০১৬ সালে আসা ৩৫ থেকে ৪৪ বছর বয়সী ইমিগ্রেন্টদের মধ্যে শতকরা ৫৪.২ জনের ব্যাচেলর ডিগ্রি রয়েছ। ১৯৯০ এর দশকে এই হার ছিল শতকরা ৩০.৫ ভাগ।

ইমিগ্রেন্টদের মধ্যে যেখানে শতকরা ৫৪.২ জন এর ব্যাচেলর ডিগ্রি রয়েছে, সেখানে নন-ইমিগ্রেন্ট অর্থাৎ মূলধারার কানাডিয়ানদের মধ্যে এই হার শতকরা ২৭.৯ ভাগ। এই অনুসন্ধানটি চালান এসোসিয়েশন অব কানাডিয়ান স্টাডিজ এর গবেষক জ্যাক জেকব।

জ্যাক জেকব এর অনুসন্ধানে দেখা গেছে কানাডায় দৃশ্যমান সংখ্যা লঘুদের মধ্যে ৪৬.৫% মহিলা ও ৪৫% পুরুষের ইউনিভার্সিটি ডিগ্রি রয়েছে। অন্যদিকে শ্বেতাঙ্গ কানাডিয়ানদের মধ্যে এই হার যথাক্রমে ৩৩.৮% ও ২৫%।

জ্যাকব বলেন, বিশ্বে সবচেয়ে বেশি ইউনিভার্সিটি ডিগ্রিধারী রয়েছে কানাডায়। দৃশ্যত এর পিছনে অবদান রয়েছে ইমিগ্রেন্টদের। সূত্রঃ ইত্তেফাক।