sentbe-top

ফেসবুক প্রেম ধর্ম, বয়স, দেশ মানল না

সিউল, ২৯ জানুয়ারি ২০১৪:

ফেসবুক প্রেমের অনন্য এক কীর্তিতে সব কিছু ভেঙে চুরমার। দেশের সীমানা, বয়স , দূরত্ব, সামাজিক অবস্থান সব কিছু মুছে ফেলে প্রেমের নতুন সংজ্ঞা লিখলেন ৪১ বছরের মার্কিন মহিলা আদ্রিয়ানা পেরাল। হার মেনেছে সিনেমার সব কাহিনীও।

image_46568.m1ফেসবুক সূত্রে পরিচয়, তারপর প্রেমে পরিণত হওয়া সম্পর্কের খাতিরে আমেরিকার শহুরে হাইপ্রোফাইল জীবন ছেড়ে এক সন্তানের মা পেরাল নতুন সংসার পাততে চলে আসেন হরিয়ানার এক ছোট্ট গ্রামে। ক মাসে আগেও নাইটক্লাব, পার্টিতে ডুবে থাকা পেরাল এখন হরিয়ানার গ্রামে চাষবাস ও গরু পালনে ব্যস্ত। ব্যাপারটা এ রকম। ৪১ বছরের আদ্রিয়ানা পেরালের জীবনটা কাটছিল আর বাকি পাঁচজন হাইপ্রোফাইল গৃহস্থ মার্কিন নারীর মতোই। অফিসে রিসেপশনিস্টের কাজ, তারপর সন্ধ্যায় জিম, রাতে নাইটক্লাবে দেদার নাচ। এভাবেই দিন কাটত তাঁর।

অফিসে ফেসবুকের সামনে মাঝেমধ্যে বসার সুযোগ পেতেন। তখনই পরিচয় হয় হরিয়ানার ২৫ বছরের মুকেশ কুমারের সঙ্গে। মুকেশের সঙ্গে কথা বলতে বেশ লাগত পেরালের। মুকেশের সঙ্গে মিশেই জীবনের মানে খুঁজে পেতে শুরু করেন পেরাল। মুকেশের কথা পেরাল জানান তাঁর মেয়ে ও বন্ধু-বান্ধবদের।

পেরালের আত্মীয় ও বন্ধুরা বলেন, ‘ফেসবুকে অনেক ভুয়া অ্যাকাউন্ট থাকে। ওই নামের আসলে কেউ নেই, তোমায় কেউ ঠকাচ্ছে।’ জেদ চেপে বসে পেরালের। মুকেশের কাছ থেকে ঠিকানা চেয়ে মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে ক্যালিফোর্নিয়া থেকে প্লেনে চড়ে দিল্লি। দিল্লি এয়ারপোর্টে তখন পেরালের জন্য অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে মুকেশ। যা দেখে চোখে জল চলে এল পেরালের। ব্যাপরটা পুরো ফিল্মি হলেও একদম সত্যি।

পেরালের মেয়েরও দারুণ পছন্দ হয়ে যায় মায়ের প্রেমিক মুকেশকে। এরপর আর কী.. সাতপাকে বাঁধা। তাঁর সংসার জীবন.. ক্যালিফোর্নিয়ার সেই পাঁচতারা জীবন ছেড়ে হরিয়ানায় একতারা জীবনে পাড়ি।
এখন নিজের হাতে রুটি করেন, লাঙল দেন, মুকেশকে চাষের কাজে সাহায্য করেন। শাশুড়ির কাছে রামায়ণ-মহাভারতের গল্পও শোনেন।
দুজনে ঠিক করেছেন ক মাসের মধ্যে নতুন সন্তানের জন্ম দেবেন। তারপর উড়ে যাবেন আমেরিকায়। জি নিউজ।

sentbe-top