cosmetics-ad

কোরিয়ান সেনা মোকাবিলায় প্রস্তুত আবাহনী

korean-footballer

আবাহনীর বিরুদ্ধে এএফসি কাপের ইন্টার জোন প্লে-অফ সেমিফাইনালের অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলতে উত্তর কোরিয়ার যে ক্লাবটি এখন ঢাকায়, তাদের সব খেলোয়াড়ই দেশটির সেনাবাহিনীর সদস্য। মেজর পদবির কর্মকর্তাও আছেন ‘এপ্রিল টোয়েন্টি ফাইভ এসসি’ নামের এই ক্লাবের খেলোয়াড় তালিকায়।

আবাহনীর জার্সিতে তিন বিদেশি খেলবেন। সফরকারী দলের সবাই কোরিয়ান-কোনো বিদেশি খেলোয়াড় নেই দলটিতে। উত্তর কোরিয়া জাতীয় দলের ৪ ফুটবলারও আছেন দলটিতে। সব মিলিয়ে আবাহনীর চেয়ে ধারে-ভারে এগিয়ে কোরিয়ান ক্লাবটি।

আগামীকাল (বুধবার) সন্ধ্যা পৌনে ৭ টায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে কোরিয়ান সেনাদের মোকাবেলায় নামবে বাংলাদেশের আকাশি-হলুদরা। দুই দলই প্রথম পর্বে নিজ নিজ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে নকআউট পর্বে উঠেছে। হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে জয়ী দলটি উঠবে জোন ফাইনালে।

আবাহনীর জন্য এটি সম্পূর্ণ নতুন অভিজ্ঞতা। এই প্রথম বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ৬ বারের চ্যাম্পিয়নরা এএফসি কাপের গ্রুপ পর্বের বাধা টপকে উঠেছে নকআউট পর্বে। উত্তর কোরিয়ার ক্লাবটি এ নিয়ে তিনবার খেলছে এই স্টেজে। দুই দলের ফিরতি ম্যাচ আগামী ২৮ আগস্ট উত্তর কোরিয়ার পিয়ং ইয়ংয়ে।

ঘরে ম্যাচ। কিন্তু আবাহনীকে সেভাবে ফুরফুরে মেজাজে দেখা যায়নি গত দুই তিন দিন। না, কোরিয়ান সেনাদের নিয়ে গঠিত দলটির ভয়ে নয়। আবাহনীর সমস্যা নিজেদের দল নিয়ে। পর্তুগিজ কোচ মারিও লেমসে এ ম্যাচে তার সেরা একাদশ নামাতে পারছেন না। দলের প্রধান ডিফেন্ডার তপু বর্মন ইনজুরিতে বাদ আগে থেকেই। আবাহনীকে এএফসি কাপের এই পর্যন্ত তোলার অন্যতম নায়ক আফগানিস্তানের মাসিহ সাইগানি পাড়ি জমিয়েছেন ভারতে।

সাইগানির বিকল্প মিশর থেকে ঈসা নামের যে ডিফেন্ডারকে এনেছিল আবাহনী, তাকেও পাচ্ছে না এ ম্যাচে সাসপেনশনের কারণে। তিন দুই দিন আগে অনুশীলনের সময় চোট পেয়ে ছিটকে গেছেন দলের অন্যতম সিনিয়র খেলোয়াড় মামুনুল ইসলাম। এত নাই নাই-এর মধ্যে দিয়েই এশিয়ার অন্যতম শক্তিশালী ক্লাব উত্তর কোরিয়ার ‘এপ্রিল টোয়েন্টি ফাইভ’কে মোকাবেলায় নামছে আবাহনী।

নানা সমস্যা নিয়ে আবাহনী কিভাবে শক্তিশালী দলটিকে মোকাবিলা করবে? আজ ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে এমন প্রশ্ন করলে আবাহনীর কোচ লেমস বলেন, ‘এটাই ফুটবল। এটাই বাস্তবতা। আপনি কখনো সেরা একাদশ পাবেন, কখনো পাবেন না। সেটা মেনেই খেলতে হবে। আর যাদের পাচ্ছি না তারাই তো আমাদের সব না। আমাদের ভালো বিকল্প আছে। আশা করি যাদের নিয়ে একাদশ গঠন করা হবে, তারা নিজেদের সেরাটা দিয়ে ভালো কিছু করার চেষ্টা করবেন।’

উত্তর কোরিয়ার ক্লাবটির কোচ ও ইয়ুন সুন বলেছেন, ‘নকআউট পর্বে সব ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ। আবাহনীর কিছু ম্যাচের হাইলাইটস দেখেছি। দলটির যে বিদেশি আছে তাদের সম্পর্কে ধারণা নিয়েছি। আমরা জয়ের জন্য খেলবো। আশা করি, ম্যাচটি উপভোগ্য হবে।’

সৌজন্যে- জাগো নিউজ