cosmetics-ad

করোনা আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা

corona-probashi

বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। ফলে প্রতিদিনই কয়েক’শ মানুষের প্রাণ ঝরছে। এতে আশঙ্কার মধ্যে দিন পার করছেন প্রবাসীরা। সিঙ্গাপুরে পাঁচ ও আরব আমিরাতে এক বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবরে প্রবাসীদের মাঝে দিনেদিনে আতঙ্ক বেড়েই চলেছে।

বিশ্বব্যাপী ৫৪টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৮৫৮ জনের। আক্রান্ত হয়েছে ৮৩ হাজার ৩৭৯ জন। অপরদিকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩৬ হাজার ৪৩৬ জন।

করোনাভাইরাসে শুধুমাত্র চীনের মূল ভূখণ্ডেই আক্রান্ত হয়েছে ৭৮ হাজার ৮২৪ জন, মারা গেছে ২ হাজার ৭৮৮ জন। অপরদিকে, দক্ষিণ কোরিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ২২ এবং মৃত্যু হয়েছে ১৩ জনের। এ ভাইরাসের কারণে ইতালি প্রবাসী বাংলাদেশিরা শুধু আতঙ্কেই নন তারা চাকরিও হারাচ্ছেন। এই মুহূর্তে ২ লাখ ৬০ হাজারের মতো বাংলাদেশি ইতালিতে রয়েছেন। দেশটির বেশির ভাগ শহরে জনকোলাহল থেমে গেছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে তালা ঝুলছে। সুপারশপ, রেস্টুরেন্ট, নাইট ক্লাবগুলোর বেশির ভাগই বন্ধ। সিনেমা হল, জাদুঘরও বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। চরম সংকটে পড়েছে রেস্টুরেন্ট ব্যবসা।

জার্মানি ও অস্ট্রিয়াতেও ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস। এতে আশঙ্কার মধ্যে দিন পার করছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরাও। স্থানীয় অধিবাসীদের চিন্তা-ভাবনায় এখন প্রাণঘাতি এই ভাইরাস। ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে সিঙ্গাপুরে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশ ত্যাগ না করে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে দূতাবাসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

সিঙ্গাপুরে করোনা ভাইরাসের পরিপ্রেক্ষিতে দেশটির বাংলাদেশ হাইকমিশন প্রবাসীদে জানান, কোনো ধরনের গুজব বা অসমর্থিত খবরে আতঙ্কিত না হয়ে কেউ যেন সিঙ্গাপুর ত্যাগ না করেন। দেশটির চিকিৎসা ব্যবস্থা যথেষ্ট উন্নত। প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় বা সরকারের কোনো সংস্থা বাংলাদেশিদের ফিরে যেতে কোনো নির্দেশনা দেয়নি।

এদিকে ওমানের দুকুমে কর্মরত শ্রমিকের মধ্যে ৯ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে এমন খবরকে গুজব বলে ঘোষণা দিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। সালালাহ, বারকা, আল মুধাইবি, আল মুসানাহ এবং ওমানের অন্যান্য প্রদেশগুলিতে করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব প্রচার করা হচ্ছে। এসব গুজবে কান না দেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে মন্ত্রণালয়।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে এখন পর্যন্ত ওমানে ৪ জন, ইউএইতে ১৩ জন, কুয়েতে ৮ জন এবং বাহরাইনে ২৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বাহরাইনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জরুরিভাবে সকল নাগরিকের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, যেসব দেশে এই ভাইরাসের উপস্থিতি আছে সেই দেশ থেকে কেউ আসলে, অথবা এই ভাইরাসের কোনো লক্ষণ কারও মধ্যে দেখা দিলে সঙ্গে সঙ্গে ‘৪৪৪’ নম্বরে ডায়াল করে জানানোর জন্য।

একই সময় মধ্যপ্রাচ্যের দেশ লেবানন, ওমান, ইসরায়েল, বাহরাইন, কুয়েতে ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। এ ছাড়া এশিয়ার দেশ আফগানিস্তান, পাকিস্তান, দক্ষিণ আমেরিকার ব্রাজিল, উত্তর আফ্রিকার আলজেরিয়াতেও পাওয়া গেছে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী।

ইতোমধ্যে ইউরোপের দেশগুলোতে আতঙ্ক ছড়াতে শুরু করেছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস। গত এক সপ্তাহে অন্তত ১১টি দেশে ধরা পড়েছে করোনাভাইরাস। এর মধ্যে রয়েছে গ্রিস, ডেনমার্ক, অস্ট্রিয়া, এস্তোনিয়া, রোমানিয়া, উত্তর মেসিডোনিয়া, সুইজারল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া, নরওয়ে, স্পেন।

প্রবাসীরা জানান, আমাদের সবাইকে পরিষ্কার পরিছন্ন থাকতে বলা হয়েছে। আর বাস কিংবা মেট্রোরেলে যাতায়াতের সময় বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া সবসময় মাস্ক ব্যবহারের জন্য বলা হয়েছে।

আইইডিসিআর জানিয়েছে- ওমান, ইরাক, আফগানিস্তান ও বাহরাইনে নতুন করে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। শনাক্ত হওয়াদের বেশিরভাগ ইরান সফর শেষে শারজা এবং দুবাই হয়ে বাহরাইনে অবতরণ করেন। মাত্র দুই দিনের ব্যবধানে বাহরাইনে এই ভাইরাসে ২৩ জন আক্রান্ত হওয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশি এবং বাহরাইনে বসবাসরত অন্যান্য দেশের প্রবাসীদের মধ্যে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ দূতাবাসের লেবার কাউন্সিলর শেখ মো. তৌহিদুর রহমান এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘বাহরাইনে এখন পর্যন্ত কোনো বাংলাদেশির এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি। আমরা দূতাবাসের পক্ষ থেকে সতর্কতামূলক বিভিন্ন কার্যক্রম শুরু করেছি।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে প্রবাসীদের মাঝে লিফলেট বিতরণ করেছি এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় একজন বাংলাদেশি ডাক্তারের উপস্থিতিতে এ রোগ সম্পর্কে সতর্ক হওয়া এবং প্রতিরোধ করার ব্যাপারে লাইভও করেছি। এ ছাড়া বাংলাদেশের স্কুলে যেখানে প্রায় এক হাজার ছাত্র-ছাত্রী লেখাপড়া করে সেখানে বাচ্চাদের পরিচ্ছন্ন থাকার এবং রোগের সতর্কতা সম্পর্কে বিশেষ ট্রেনিং দেওয়া হয়েছে।