cosmetics-ad

বিডিনিউজ২৪ এ প্রকাশিত ‘মতামত’ এর প্রতিবাদ বিএসএকে’র

bsak

বিডিনিউজ২৪ এ প্রকাশিত  “ভিনদেশেও ছাত্রশিবিরের অপতৎপরতা” শিরোনামের একটি মতামতের প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন ইন কোরিয়া (বিএসএকে)। ইমেইলে পাঠানো প্রতিবাদটি হুবহু তুলে ধরা হল।

গত ১৪ নভেম্বর, ২০১৬ bdnews24.com এ বিজন সরকার ও নাদিম মাহমুদ এর “ভিনদেশেও ছাত্রশিবিরের অপতৎপরতা” শিরোনামে প্রকাশিত মতামত কলামে Bangladeshi Students’ Association in Korea (BSAK) সম্পর্কে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত বানোয়াট। আমরা প্রকাশিত মতামতের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

“কোরিয়াতে জামায়াত-শিবিরকে একটি প্ল্যাটফর্মে এনে দেয় সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের একটি সংগঠন” সম্পূর্ণ মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রানোদিত বানোয়াট। BSAK একটি অরাজনৈতিক ও অলাভজনক ছাত্রসংগঠন। কোরিয়ার ব্যস্ত জীবনে পড়াশুনার পাশাপাশি দল, মত, ধর্ম নির্বিশেষে কিছু ঊদ্দ্যমি ছাত্রছাত্রীরা একটি কমন প্লাটফর্ম BSAK এর জন্য কাজ করে থাকে। BSAK প্রতি সেমিস্টারে গ্রুপে ওপেন পোস্ট দিয়ে ET-RT টিম পুনর্গঠন করে থাকে। BSAK এর ইতিহাসে BSAK এর সাথে কাজ করতে গিয়ে সুযোগ পাননি এমন কোন ঘটনা ঘটেনি। BSAKএ কোন রাজনৈতিক চর্চা নাই। BSAK ছাত্রছাত্রীদের মঙ্গলের জন্য কাজ করে, দেশের জন্য কাজ করে।

“সংগঠনটি গ্রীষ্মকালীন ও শীতকালীন ‘গেট টুগেদার’ ছাড়া অন্য কোনো কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে না” সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। BSAK গেট টুগেদারের পাশাপাশি বাংলাদেশ সরকারের এম্বাসিতে সকল জাতীয় দিবসে অংশগ্রহণ, কন্সুলিং সেবা, সেমিনার, ইবুক প্রকাশ, শীতকালীন বস্ত্রবিতরণ, সাভার ট্র্যাজেডিতে সাহায্য, কোরিয়া সরকারের বিভিন্ন কার্যক্রম (Global village, Migrant cultural program, Global Seoul voluntary program, International students association etc.) এবং ছাত্রছাত্রীদের যে কোন সমস্যায় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে থাকে।

“গেট টুগেদারে একুশে ফেব্রুয়ারি নিয়ে কথা বলা বন্ধ করা হয়, বন্ধ ছিল রবীন্দ্র সংগীত গাওয়া” সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। প্রতিটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গ্রুপে পোস্ট দিয়ে অংশগ্রহণকারীদের নেয়া হয় এবং অংশগ্রহণকারীরা তাদের পছন্দমত পারফর্ম করে থাকেন। BSAK কাউকে কখনো একুশে ফেব্রুয়ারি নিয়ে কথা বলতে নিষেধ বা রবীন্দ্র সংগীত গাইতে নিষেধ করেনি বরং BSAK বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি গর্বের সাথে লালন করে থাকে।

“আগে সম্পাদনার দায়িত্ব ছিল উদারপন্থীদের হাতে, পরে সেটি চলে যায় জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীদের হাতে” সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। সাহিত্য সাময়িকী সম্পাদনার জন্য BSAK ET-RT টিম প্রতিবার অভিজ্ঞদের নিয়ে একটি সম্পাদনা টিম করে থাকেন। সেই টিম একটি মানসম্পন্ন সাহিত্য সাময়িকীর জন্য কাজ করেন।

কেজিএসপি স্কালারশিপ, প্রেফেসরস স্কলারশিপ ও বিশ্ববিদ্যালয় স্কলারশিপের ব্যাপারেও যেসব মন্তব্য করেছেন তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। এসবের মাধ্যমে উনারা সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের হেয় করেছেন।

তাই বিজন সরকার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে BSAK ও সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের কাছে ক্ষমা ও bdnews24.com থেকে এই মতামত প্রত্যাহার না করলে Bangladeshi Students’ Association in Korea (BSAK) থেকে আজীবন বহিষ্কার এবং পরবর্তিতে যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

BSAK সম্পর্কে যে কোন গঠনমূলক পরামর্শ, মতামত ও প্রয়োজনে আমাদেরকে ইমেইল করতে পারেন: [email protected]