sentbe-top

যুদ্ধ চাপিয়ে দিলেও শর্ত মানবে না কাতার!

qatarচলমান সংকট নিরসনে সৌদি আরবের নেতৃত্বে মধ্যপ্রাচ্যের চারটি দেশের দেওয়া ১৩ শর্ত প্রত্যাখ্যান করেছে কাতার। আর এই দাবিগুলো প্রত্যাখানের কারণে কোনো ধরনের সামরিক পদক্ষেপকেও ভয় পায় না দোহা। গতকাল শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আবদুলরহমান আল-থানি।

কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সবাই অবগত যে দাবিগুলো কাতারের সার্বভৌমত্বকে লঙ্ঘন করে। বিশ্ব আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী পরিচালিত হয় বলে বিশ্বাস করে কাতার। এই আইন ছোট দেশের ওপর বড় দেশের বলপ্রয়োগ অনুমোদন করে না।

আল-থানি বলেন, একটি সার্বভৌম দেশের ওপর আল্টিমেটাম জারির অধিকার কারও নেই। তিনি বলেন, দাবিগুলো নাকচ করা হয়েছে। এসব দাবি কখনোই মানা হবে না। সৌদি আরব ও তার সহযোগী দেশগুলোর দাবি নাকচ করার পাল্টা প্রতিক্রিয়া কী হবে, তা নিয়ে কাতার ভীত নয়। যেকোনো পরিণতি মোকাবিলায় কাতার প্রস্তুত।

সৌদি গেজেটের এক খবরে বলা হয়েছে, সৌদি আরব ও তার সহযোগী দেশগুলোর বেঁধে দেওয়া সময়সীমা শেষ হওয়ার ৪৮ ঘণ্টা আগেই কাতার ওই ১৩ দাবি না মানার বিষয়ে আবারও ঘোষণা দিল।

এর আগে গত ২৪ জুন সৌদি আরবের নেতৃত্বে মধ্যপ্রাচ্যের চারটি দেশের দেওয়া ১৩ শর্তকে বাস্তবতা বিবর্জিত বলে উল্লেখ করে কাতার। তখন তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ওইসব শর্তকে বাস্তবায়ন অযোগ্য বলেও উল্লেখ করে কাতার।

এর আগের ২৩ জুন শুক্রবার সৌদি আরব, মিসর, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন কাতারের ওপর আরোপিত কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে ১৩টি শর্ত দিয়ে তা মেনে নেওয়ার জন্য ১০দিনের সময় বেঁধে দেয়।

কাতারে পাঠানো ওই চার দেশের শর্তের প্রথমেই আছে আল জাজিরা টেলিভিশন চ্যানেলটি বন্ধকরার দাবি। এর পরের শর্ত হিসেবে ইরান ও তুরস্কের সঙ্গে সামরিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক হ্রাসের দাবিও করা হয়েছে। এছাড়া কাতারে তুরস্কের সামরিক ঘাঁটি বন্ধ করে দেওয়ার দাবিও জানানো হয়েছে। দাবিতে ওই এলাকার নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থী সংগঠন মুসলিম ব্রাদারহুডের সঙ্গে সকল সম্পর্ক ছিন্ন করার কথাও বলা হয়েছে।

কাতারে অবস্থান করা ওই চার দেশের তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসীদের হস্তান্তরের দাবিও জানিয়েছে দেশ চারটি। চরমপন্থী যেকোনো কোনো সংগঠনে অর্থায়ন বন্ধ করার বিষয়টিও গুরুত্ব সহকারে বলা হয়েছে। এছাড়া সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিশর ও বাহরাইনের স্বার্থের বিরুদ্ধে কাজ করে এমন প্রতিষ্ঠানের বিস্তারিত তথ্যও দেওয়ার জানিয়েছে তারা।

গত ৫ জুন মধ্যপ্রাচ্যে চরমপন্থীদের মদদের অভিযোগ তুলে কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও মিশর। তবে কাতার সেই পদক্ষেপকে বিবেচনা বর্হিভূত সিদ্ধান্ত হিসেবে আখ্যা দিয়েছিল। দোহার পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, ইসলামিক স্টেট বা ব্রাদারহুডের সঙ্গে তাদের কোনো আতাত নেই। তারা কোনো চরমপন্থী সংগঠনকে মদদ দিচ্ছে না।

এদিকে কাতারের এই সংকটে ইরান ও তুরস্ক দেশটির পাশে এসে দাঁড়ায়েছি। ওই দুই দেশ কাতারে খাদ্য পাঠিয়েছে। এছাড়া শক্তি প্রদর্শনের জন্য তুরস্ক সেনা ও সামরিক যান পাঠিয়েছে। যদিও আঞ্চলিক উত্তেজনা প্রশমনে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোয়ান সৌদি আরবের নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছেন বলেও জানা গেছে।

sentbe-top