মোবাইল উৎপাদনে বাংলাদেশে ফ্যাক্টরি বানাতে চায় এলজি

lgমোবাইল ফোন উৎপাদনে বাংলাদেশে ফ্যাক্টরি বানাতে চায় দক্ষিণ কোরিয়ার বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান এলজি। এছাড়া মোবাইল ফোনের পাশাপাশি এলজির অন্যান্য প্রোডাক্ট ম্যানুফ্যাকচারিং করার পরিকল্পনাও রয়েছে। শিগগির এ বিষয়ে আপনারা ঘোষণা পাবেন। ১৩ জুলাই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর এক হোটেলে এলজির নতুন চারটি স্মার্টফোন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন এলজি বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এডওয়ার্ড কিম।

তিনি আরও বলেন, ‘এলজি ইলেক্ট্রনিক বিশ্ববাজারে তাদের মোবাইল ফোন সেরা অবস্থানে নিয়ে যেতে বদ্ধ পরিকর। আর এই উদ্দেশ্য অর্জন করতে বাংলাদেশের বাজারে মেট্রোসেম টেকনোলজি লিমিটেডেকে ন্যাশনাল ডিস্ট্রিবিউটর হিসেবে মনোনয়ন করে তাদের সঙ্গে আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছি। এরই ধারাবাহিকতায় আমরা চারটি নতুন স্মার্টফোন বাজারে এনেছি।’

ওই অনুষ্ঠানে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমচালিত চারটি নতুন স্মার্টফোন এলজি কে-ফোর, এলজি কে-এইট, এলজি কে-টেন এবং এলজি-স্টাইলাস থ্রি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। স্মার্টফোনগুলোর মোড়ক উন্মোচন করেন এলজি মোবাইল বাংলাদেশের পরিবেশক প্রতিষ্ঠান মেট্রোসেম টেকনোলজিস।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মেট্রোসেম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শহিদ উল্লাহ, কোরিয়ান অ্যাম্বাসেডর টু বাংলাদেশ অং সান ডু, কেবিসিসিআই-এর সভাপতি মোস্তফা কামাল, মেট্রোসেম টেকনোলজিসের ডিরেক্টর অপারেশনস জহিরুল ইসলামসহ প্রতিষ্ঠানগুলোর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা।

বাংলাদেশে এলজি মোবাইল ফোনের বাজারজাতকরণের সুযোগ দেওয়ার জন্য এলজি কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান মেট্রোসেম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শহিদ উল্লাহ। তিনি গ্রাহকদের এলজির নতুন নতুন ফোনের সঙ্গে সৃজনশীল অভিজ্ঞতা প্রদান করার অভিপ্রায় প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, বাজারে আসা এলজির নতুন স্মার্টফোন এলজি কে-ফোর, এলজি কে-এইট, এলজি কে-টেন এবং এলজি-স্টাইলাস থ্রি এর দাম যথাক্রমে ১০ হাজার ৮০০, ১৩ হাজার ৯০০ টাকা, ১৭ হাজার ৯০০ টাকা এবং ২৪ হাজার ৯০০ টাকা। ফোনগুলো সারাদেশে পাওয়া যাচ্ছে।