cosmetics-ad

লঙ্কানদের বিপক্ষে চার তরুণের অভিষেক

four-young-cricketer

নতুন ক্যাপটা হাতে নিয়ে ‘স্নেক ড্যান্স’ দেওয়ার মতো করলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তারপর হাসিমুখে সেই ক্যাপ পরালেন নাজমুল ইসলাম অপুর মাথায়। একটু আগেই আফিফ হোসেন ধ্রুবকে ক্যাপ পরিয়েছেন তামিম ইকবাল। কাছে গিয়ে কিছু বললেন, বুকেও জড়িয়ে নিলেন। জাকির হোসেনকে ক্যাপ পরালেন টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন। আরিফুল হক ক্যাপ পরলেন মুশফিকুর রহিমের কাছে। এভাবেই বাংলাদেশ বনাম শ্রীলঙ্কার মধ্যকার প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে চারজন বাংলাদেশি ক্রিকেটারের অভিষেক হলো!

বৃহস্পতিবার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসের পর বাংলাদেশের ড্রেসিংরুমের সামনে যেন উৎসব শুরু হয়েছিল। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) সর্বশেষ আসরের অন্যতম সেরা পারফর্মারদের মধ্যে ছয়জনকে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি দলে নেওয়া হয়। ২০১৬ সালের পর এই প্রথম আবু হায়দার রনিকেও নেওয়া হয়েছে। কিন্তু ম্যাচের আগে কপাল খুলল অপু, ধ্রুব, আরিফুল ও জাকিরের।

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ দলে সর্বোচ্চ অভিষেকের রেকর্ড এর আগেও ছিল চারজনের। ২০১৬ সালের ২০ জানুয়ারি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে অভিষেক হয় মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, আবু হায়দার রনি, মুক্তার আলী ও মোহাম্মদ শহিদের।

ব্যাটসম্যান আরিফুল সর্বশেষ বিপিএলে ১২ ম্যাচের ১১ ইনিংসে ২৯.৬২ গড়ে ২৩৭ রান করেন। খেলেছিলেন খুলনা টাইটান্সের হয়ে। দেশি ব্যাটসম্যানদের তালিকায় সাকিব আল হাসান, সাব্বির রহমান, মুশফিকুর রহিমদের পেছনে ফেলে পাঁচ নম্বরে জায়গা করে নেন। বিপিএলের মতো ঘরোয়া ক্রিকেট টুর্নামেন্টগুলোতে ধারাবাহিক পারফরম্যান্স করার কারণে একাধিকবার জাতীয় দলের নির্বাচকদের ভাবনায় এসেছিলেন।

টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে সুযোগ পাওয়ার পর জাকির হোসেন প্রিয়.কমকে বলেছিলেন, ‘প্রথমবার তো, আমি চেষ্টা করব আমার পারফরম্যান্সে ফোকাস করার। একটা ভাল জায়গা আছে ব্যাটিং করার। আমার লেভেল অনুযায়ী, সর্বোচ্চ চেষ্টা করব।’

সেই চেষ্টার বাস্তবায়নের সুযোগ পেয়েছেন জাকির। সাবেক অধিনায়ক সুজনের হাত থেকে টি-টোয়েন্টি ক্যাপ নেওয়ার মধ্যে দিয়ে খুললেন ক্যারিয়ারের নতুন পাতা। দিনাজপুর বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি) থেকে উঠে আসা অনূর্ধ্ব-১৯ দলের এই ক্রিকেটার একজন বাঁহাতি উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান। খুলনা টাইটান্সের হয়ে বিপিএলে নজরকাড়া পারফরম্যান্স করেছিলেন জাকির। সর্বশেষ আসরে ৮ ম্যাচে ২৪.১৪ গড়ে ১৬৯ রান করেন তিনি।

আফিফ হোসেন ধ্রুব আলোচনায় ছিলেন ২০১৬ সাল থেকে। সেটাও বিপিএলের সূত্র ধরেই। ওই আসরে রাজশাহী কিংসের হয়ে খেলেছিলেন তিনি। বাঁহাতি ব্যাটিংয়ের সাথে তার ডানহাতি অফ স্পিন যে কোনো প্রতিপক্ষের জন্যই হুমকির। বিপিএলে নিজের প্রথম ম্যাচে চার ওভার বল করে ২১ রান দিয়ে তুলে নিয়েছিলেন পাঁচ উইকেট। মাত্র শেষ হওয়া অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে তিনি ছিলেন সহ-অধিনায়ক।

২০১৭ বিপিএলের চ্যাম্পিয়ন দল রংপুর রাইডার্সের সবচেয়ে ‘এন্টারটেইনার’ ক্রিকেটার ছিলেন নাজমুল ইসলাম অপু। বারবার নিজের বাঁহাতি স্পিনে রহস্যের ফাঁদে ফেলেছেন প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের। সঙ্গে সাপের মতো নাচে তার উদযাপন বাড়তি নজর কেড়েছিল দর্শকদের। ১০ ম্যাচে ১২ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় দশ নম্বরে ছিলেন।

প্রিয়ডটকম এর সৌজন্যে