cosmetics-ad

অলিম্পিকে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে বৈঠক বাতিলের অভিযোগ যুক্তরাষ্ট্রের

pense-young
অলিম্পিকের উদ্বোধনীতে কাছাকাছি বসেন মাইক পেন্স ও ইয়ো জং। ছবি: বিবিসি।

দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত শীতকালীন অলিম্পিকের উদ্বোধনীতে যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স উপস্থিত থাকলেও শেষ পর্যন্ত আলোচনার বিষয়ে পিয়ংইয়ং নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে এ অভিযোগের বিষয়ে উত্তর কোরিয়া এখনো মুখ খোলেনি। খবর বিবিসির।

যুক্তরাষ্ট্রের একজন মুখপাত্র জানান, উত্তরের নেতা কিম জং উনের বোন ইয়ো জং এবং তার প্রতিনিধি দলের সঙ্গে মাইক পেন্সের বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। আলোচনা হলে এটিই হতো উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ট্রাম্প প্রশাসনের প্রথম কোনো আনুষ্ঠানিক বৈঠক।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের মুখপাত্র হেথার নুয়ার্থ বলেন, উত্তর কোরীয় প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠকের সম্ভাবনা জেগে ওঠায় মাইক পেন্সও এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে দেশটির অবৈধ ব্যালিস্টিক ক্ষেপনাস্ত্র ও পারমানবিক কর্মসূচি থেকে নিবৃত্ত করতে ব্যবস্থা গ্রহণে আলোচনা করতে চেয়েছিল।

কিন্ত শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত উত্তরের প্রতিনিধি দল এ বৈঠকটি সামনে এগিয়ে না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সুযোগটি হাতছাড়া করার পেছনে তাদের এ ব্যর্থতায় যুক্তরাষ্ট্র দু:খিত বলেও বিবৃতিতে জানিয়েছে দেশটি।

অলিম্পিকে উত্তর কোরিয়ার উপস্থিতি কোরীয় অঞ্চলে চলমান উত্তেজনার বরফ গলবে বলে অনেকেই ধারণা করেছিল। কিন্ত পরমানু কর্মসূচী ইস্যুতে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সমালোচনার মুখে নিজেদের ভাবমূর্তি বাড়াতে এ উপস্থিতিকে দেশটির এক প্রকারের কূটকৌশল হিসেবেও উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বড় বড় শক্তিধর রাষ্ট্রগুলো উত্তর কোরিয়াকে পারমানবিক কর্মসূচী থেকে বেরিয়ে আসতে এবং মানবাধিকার পরিস্থিতি উন্নয়নে চাপ অব্যাহত রেখেছে।

এদিকে দক্ষিণ কোরিয়ায় অবস্থানকালে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে কূটনৈতিক আলোচনায় না বসায় মাইক পেন্সেরও সমালোচনা চলছে। অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মাত্র এক ফুট দূরত্বে বসেছিলেন পেন্স ও ইয়ো জং। তবে কেউ কারো সঙ্গে কোনো কথা বলেনি।

অর্থসূচক এর সৌজন্যে