sentbe-top

নিউইয়র্কে চারদিন ধরে নিখোঁজ বাংলাদেশি ছাত্র

tanvirনিউইয়র্কে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত স্কুলছাত্রের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। নিখোঁজ হওয়ার ৪ দিন পরও মো. তানভির হোসেনের সন্ধান পায়নি নিউইয়র্কের পুলিশ। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক সিটির ব্রঙ্কসে লুইস অ্যান্ড ক্লার্ক স্কুলের একাদশ গ্রেডের ছাত্র তানভিরের বাবা জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আলতাফ হোসেন বুধবার এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, ‘গত রোববার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে আমার সঙ্গেই বাসা থেকে চুল কাটাতে বের হয় তানভির। সেলুনে পৌঁছানোর পর সে জানায় যে, আজ চুল কাটাবে না। বাসায় ফিরতে চায়। আমি সেলুনে ঢুকে চুল কাটার পর বাসায় ফিরে দেখি তানভির নেই। অপেক্ষা করি রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত।’

আলতাফ জানান, ‘বহুদিন যাবৎ ব্রঙ্কসের ২৮৯৪, ব্রিজ এভিনিউতে বসবাস করছি সপরিবারে। তানভিরের সবকিছু জানাশোনা। তাই তার ফেরার অপেক্ষায় ছিলাম। কিন্তু সে না ফেরায় ৯১১ এ ফোন করি। নিখোঁজ রিপোর্ট করেছি। পরদিন পুলিশ বাসায় এসেছিল। ডিটেকটিভ মাঠে নেমেছে। যে স্থান থেকে নিখোঁজ হয়েছে, সেখান থেকে ৫ ব্লক পর্যন্ত তানভির হেঁটে যাবার ভিডিও ফুটেজ পাওয়া গেছে আশপাশের সিসিটিভি থেকে। তারপরই সে উধাও।’

তানভিরের নিখোঁজ হওয়ার সংবাদে পুরো কমিউনিটিতে গভীর উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়েছে। সকলেই পুলিশ এবং স্থানীয় নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলেছেন। কিন্তু বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত কোনো ক্লু পায়নি পুলিশ।

তানভিরের বাবা আলতাফ জানান, শুক্রবার বাদ জুমা ব্রঙ্কসে যেখান থেকে সে নিখোঁজ হয়েছে, সেখানে প্রবাসীরা মানববন্ধন করবেন। কমিউনিটির সর্বস্তরে এ নিয়ে প্রস্তুতি চলছে। প্রকাশ্য দিবালোকে এমনভাবে নিখোঁজ হওয়ার ঘটনাকে কেউই সহজভাবে নিতে চাচ্ছেন না। নিখোঁজ হওয়ার আগে তানভিরের কাছে তেমন কোনো নগদ অর্থও ছিল না।

তানভিরের বাবা বলেন, স্কুলে কিংবা চলতি পথে কখনো কারো সঙ্গে তানভিরের বিবাদ হয়েছে বলেও শুনিনি। তাই আমরাও গভীর শঙ্কায় রয়েছি। আমি চাই তানভিরের প্রত্যাবর্তন।

এদিকে, তানভিরের হদিস চেয়ে নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টের পক্ষ থেকে পোস্টার লাগানো হয়েছে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে। সেখানে পুলিশের ডিটেকটিভের নামসহ ফোন নম্বরও দেয়া হয়েছে।

sentbe-top