sentbe-top

সূচি পরিবর্তন নিয়ে উল্টো সাফাই গাইছে ভারত

india-cricket-teamএশিয়া কাপের সূচি নিয়ে টুর্নামেন্ট শুরুর আগে থেকেই বিতর্ক। টুর্নামেন্ট শুরুর পর সেই বিতর্কের আগুনে যেন ঘি ঢেলে দিল এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)। ভারতের সুবিধার কথা চিন্তা করে নতুন করে সুপার ফোরের সূচি সাজিয়েছে তারা, যা নিয়ে আবারও শুরু হয়েছে সমালোচনা। তবে এমন কাণ্ড করে আবার নিজেদের পক্ষে সাফাই গাইছে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (বিসিসিআই)। তাদের দাবি, সূচি পরিবর্তনের বিষয়টি নাকি আগে থেকেই জানতো দলগুলো।

‘জোর যার মুল্লুক তার’ অবস্থা। সুপার ফোরের আগের সূচি অনুযায়ী, বাংলাদেশ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলে তাদের ম্যাচ পড়তো আবুধাবিতেই, যেখানে তারা গ্রুপের শেষ ম্যাচটি খেলবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে।

কিন্তু এখন পরিবর্তিত সূচিতে বাংলাদেশের ম্যাচ দেয়া হয়েছে দুবাইতে। মাঝে আবার একদিনও বিরতি নেই। অর্থাৎ, আবুধাবিতে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ২১ সেপ্টেম্বর খেলে ২২ সেপ্টেম্বরের ম্যাচ খেলতে দুবাইতে দৌঁড়াতে হবে টাইগারদের, যে ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ আগেভাগেই নির্ধারণ করে রাখা হয়েছে ভারতকে।

অথচ সুপার ফোরের এই সূচি চূড়ান্ত করা হলেও এখন পর্যন্ত দুই গ্রুপে কারা চ্যাম্পিয়ন সেটিই ঠিক হয়নি। খেয়াল খুশিমত বাংলাদেশকে ‘বি’ গ্রুপ রানার্সআপ আর ভারতকে ‘এ’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ধরে সূচি সাজিয়ে ফেলেছে এসিসি।

ভারতের এমন স্বেচ্ছাচারিতা নিয়ে স্বভাবতই ভীষণ সমালোচনা চলছে। তবে এসব সমালোচনায় থোড়াই কেয়ার ভারতের। টুর্নামেন্ট আরব আমিরাতে হলেও এর আসল আয়োজক ছিল ভারত। বিসিসিআই বলছে, আয়োজক দেশ হিসেবে বাড়তি লভ্যাংশ নিশ্চিত করার জন্যই এসব করা হয়েছে। এখানেই শেষ নয়। বিসিসিআইয়ের এক কর্মকর্তার দাবি, এশিয়া কাপের সূচি যে বদল হবে, সেটি আগেভাগেই নাকি জানানো হয়েছিল অংশগ্রহণকারী দলগুলোকে।

আগেভাগে যদি জানানো হয়েই থাকে, তবে পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ আর বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা সূচি বদল নিয়ে কেন হতাশা প্রকাশ করলেন-সেটিও এক বড় প্রশ্ন!

sentbe-top