রেকর্ড গড়ে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে পাকিস্তানের বাবর আজম

babor-azomএক সিরিজেই চার ধাপ এগোলেন বাবর আজম। টি-টোয়েন্টি ব্যাটসম্যান র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থানটি দখলে নিয়েছেন তিনি। পাকিস্তানি এই ব্যাটসম্যান হটিয়ে দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার অ্যারন ফিঞ্চকে, দুর্দান্ত এক রেকর্ডও গড়েছেন।

র‌্যাঙ্কিংয়ের উন্নতিটা এমনি এমনিই হয়নি বাবরের। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সদ্য সমাপ্ত টি-টোয়েন্টি সিরিজে তার ইনিংস তিনটি ছিল-৬৮*, ৪৫ আর ৫০ রানের, যে সিরিজটি ৩-০ ব্যবধানে জিতেছে পাকিস্তান।

দুর্দান্ত ছন্দে ছিলেন বাবর। ঠিক উল্টো অবস্থা এক নাম্বার ব্যাটসম্যান হিসেবে সিরিজ শুরু করা ফিঞ্চের। পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচে তিনি করেন-০, ৩, ১। শীর্ষস্থান হারিয়ে এখন দুইয়ে অজি ওপেনার।

পুরো সিরিজেই দুর্দান্ত খেলা বাবর একটি বড় রেকর্ডও গড়েছেন। টি-টোয়েন্টি ইতিহাসে পঞ্চাশের উপর গড়ে (কমপক্ষে ২০ ইনিংস) রান করা একমাত্র ব্যাটসম্যান তিনি। দেশের হয়ে ২৩ টি-টোয়েন্টিতে বাবরের গড় ৫৬.৫৬।

মজার বিষয় হলো, বোলারদের টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ পাঁচটি স্থানই দখলে লেগস্পিনারদের। এক নাম্বারে আছেন আফগানিস্তানের রশিদ খান, দুইয়ে পাকিস্তানের শাদাব খান, তিনে নিউজিল্যান্ডের ইশ সোধি, চারে ভারতের ইয়ুজবেন্দ্র চাহাল আর পাঁচে ইংল্যান্ডের আদিল রশিদ।

শীর্ষ পাঁচ টি-টোয়েন্টি ব্যাটসম্যান

১. বাবর আজম (পাকিস্তান)
২. অ্যারন ফিঞ্চ (অস্ট্রেলিয়া)
৩. লোকেশ রাহুল (ভারত)
৪. কলিন মানরো (নিউজিল্যান্ড)
৫. ফাখর জামান (পাকিস্তান)

শীর্ষ পাঁচ টি-টোয়েন্টি বোলার

১. রশিদ খান (আফগানিস্তান)
২. শাদাব খান (পাকিস্তান)
৩. ইশ সোধি (নিউজিল্যান্ড)
৪. ইয়ুজবেন্দ্র চাহাল (ভারত)
৫. আদিল রশিদ (ইংল্যান্ড)

শীর্ষ পাঁচ অলরাউন্ডার

১. গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (অস্ট্রেলিয়া)
২. মোহাম্মদ নবি (আফগানিস্তান)
৩. সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ)
৪. জেপি ডুমিনি (দক্ষিণ আফ্রিকা)
৫. মারলন স্যামুয়েলস (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)।