cosmetics-ad

কানাডায় অমুসলিম প্রতিবেশীদেরকে মসজিদে আমন্ত্রণ জানানোর উদ্যোগ

canada-mosque
কানাডার প্রথম মসজিদ ‘আল-রশিদ মসজিদ’

কানাডায় বসবাসরত মুসলিমগণ তাদের প্রতিবেশীদেরকে নিজেদের সবচেয়ে পবিত্র স্থান মসজিদে আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন। দেশটির ইহুদি অধিবাসীদের ধর্মীয় প্রার্থনায় যোগদান এবং সংহতি প্রকাশের এক সপ্তাহ পর মুসলিম গণ এমন উদ্যোগ নিয়েছেন।

দ্বিতীয় বার্ষিক মসজিদ দিবসে কানাডার হালিফাক্স, সাসেক্স, মোনটন, শেরব্রোক, কুইবেক, মন্ট্রিয়াল, অটোয়া, টরেন্টো, এইমোন্টোন এবং কালগ্রে সহ দেশটির বিভিন্ন শহরের মসজিদ সমূহের সদর দরজা সকলের জন্য উন্মুক্ত করা দেয়া হয়।

এই উদ্যোগের অন্যতম উদ্দেশ্য হচ্ছে কানাডার মুসলিমদের সম্পর্কে ভুল ধারণা সমূহ দূরীভূত করা এবং গত বছর যাবত দেশটির মুসলিমদের মানব প্রেম সম্পর্কে তুলে ধরা।

‘The Canadian-Muslim Vote’ নামের একটি সংগঠন এমন উদ্যোগ নেয় যাদের অন্যতম উদ্দেশ্য হচ্ছে কানাডার মুসলিমদের রাজনীতিতে সংযুক্ত করা।

‘Jaffari Islamic Centre in Thornhill’ নামের সংগঠনের ভাইস-প্রেসিডেন্ট সাফিক ইব্রাহিম বার্তা সংস্থা হাফিংটন পোষ্টকে বলেন, ‘আমাদের কোনো কিছু লুকানোর নেই। আমরা কোনো গুপ্ত সংগঠন বা প্রহেলিকা-পূর্ণ জাতি নই। আমরা আইন মান্য করি এবং কর প্রদান করি একই সাথে আমরা আমাদের প্রতিবেশীদের ভালোবাসি। আমরা এখানে একে অন্যের সাথে সত্যিকারের সু-সম্পর্ক গড়ে তুলতে চাই।’

‘Jaffari Islamic Centre in Thornhill’ এর আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের সামনে ইসলাম সম্পর্কে বিষদ বিবরণ তুলে ধরা হয় এবং একই সাথে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেয়া হয়।

সাফিক ইব্রাহিম বলেন, ‘একে অন্যের সাথে আলোচনার মাধ্যমেই দ্বার উন্মুক্ত হয়। আমি অবাক হয়ে যাই লোকজন আসলে কত মহান কিছু প্রশ্ন করে থাকে এবং আমরা তাদের কে এসব প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দিতে প্রতিশ্রুতি বদ্ধ।’

তিনি বলেন, ‘কানাডা আমাদের জন্য তার দ্বার খুলে দিয়েছে এবং আমাদের স্বাগত জানিয়েছে। এই দেশ আমাদের বসবাসের জন্য অনেক সুবিধা দিয়েছে যাতে করে আমাদের মধ্যে কানাডার মূল্যবোধ তৈরী হতে পারে এবং আমরা এখন তা আমাদের সন্তানদের কে শিক্ষা দিচ্ছি।’

সংগঠনটি বছর জুড়ে অন্তত ২০০ বারের মত দাতব্য কাজে অংশ নেয়, আলোচনা সভার আয়োজন করে এবং স্থানীয়দের এসব উদ্যোগে অংশ নেয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানায়।

অটোয়ার আইন সভার সদস্য ওয়েল হার্ডেন অটোয়া মসজিদে সফর করেন এবং তিনি মসজিদ কেন্দ্রিক বিভিন্ন দাতব্য কাজের প্রশংসা করেন। অটোয়ায় একটি শক্তিশালী টর্নেডোর পর মসজিদের সদস্যরা হাজার হাজার মানুষকে খাদ্য দিয়ে সহায়তা করার বিষয়টি তিনি তুলে ধরেন।

তিনি বার্তা সংস্থা হাফিংটন পোষ্ট কে এক টেলিফোন সাক্ষাতকারে বলেন, ‘তারা এসব নিয়ে গর্ব করে না কিন্তু তারা সবসময় প্রতিবেশীদের সহায়তা করার মত গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে থাকে।’

‘The Canadian-Muslim Vote’ এর নির্বাহী পরিচালক আলি মানেক বলেন, কানাডার দুটো মসজিদে হামলা চালিয় শত শত মুসলিম কে হত্যা করা হবে এমন হুমকির পর আমরা এসব অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে থাকি।

আলি মানেক বলেন, যে ব্যক্তি শেরব্রোক মসজিদে এমন হামলার হুমকি দিয়েছিল সে আমাদের আয়োজন দেখে নিজের ভুল বুজতে পারে এবং এর জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করে। কিন্তু যে ব্যক্তি সস্কারবোরগ মসজিদে হামলার হুমকি দিয়েছিল তাকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে।

তিনি হাফিংটন পোষ্ট কে টেলিফোনে বলেন, ‘এসব হামলার হুমকির পর আমার মানসিক স্বাস্থ্য কতোটা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তা আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না। আমি এসব অনুষ্ঠানে একটি বিষয় তুলে ধরেছি যে, নেতিবাচক বিষয় সমূহ সরিয়ে রেখে আমরা এখানে আপনার জন্য দাঁড়িয়ে আছি। আমরা এখনো আপনার প্রশ্ন সমূহের উত্তর দেয়ার অপেক্ষায় আছি।’

এদিকে ‘Jaffari Islamic Centre in Thornhill’ স্থানীয় বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠনের সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এসব সংঘাত থেকে সব ধরনের ধর্মের অনুসারীদের সুরক্ষা দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে।

সাফিক ইব্রাহিম হাফিংটন পোষ্টকে বলেন, ‘এমন সুযোগ তৈরী করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একটি সৌহার্দ পূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য আপনাকে প্রতিনিয়ত কাজ চালিয়ে যেতে হবে এমনকি যদি এখানে কোনো হুমকির বিষয় না থেকে থাকে তারপরেও।’

তিনি বলেন, ‘এভাবেই আপনি জানবেন তাদের ঠিক কি প্রয়োজন, তাদের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের কোথায় কোথায় উন্নতি করতে হবে তা সম্পর্কে তারা কি ভেবে থাকে আর কোন কোন কাজ করলে আমাদের জন্য ভালো হবে ইত্যাদি।’

আলি মানেকের মতে, এর মাধ্যমে নাগরিকদের সাথে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার চাবিকাঠি লুকিয়ে রয়েছে। তিনি বলেন, ‘মুসলিমদের কে কানাডার সবচেয়ে বড় বড় কাজ যেমন গণতন্ত্র, সরকার এবং নাগরিক দায়িত্ব ইত্যাদিতে অংশ নেয়া আরো বাড়িয়ে তুলতে হবে।’

আলি মানেক আরো বলেন, ‘আমরা কতোটা করতে পারব তা আমাদের নিজেদের জন্য নয় বরং এটি আমাদের পরবর্তী প্রজন্মের জন্য, ভবিষ্যৎ কানাডার সমাজের জন্য।’