cosmetics-ad

টেস্টের পর টি-টোয়েন্টিতেও আফগানদের কাছে হার টাইগারদের

mushi

এবারও আফগান বাধা কাটাতে পারল না বাংলাদেশ। চট্টগ্রাম টেস্টের পর টি-টোয়েন্টি ত্রিদেশীয় সিরিজেও আফগানদের বিপক্ষ ২৫ রানে হারলো সাকিব আল হাসানরা।

আফগানিস্তানের দেওয়া ১৬৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ১৯.৫ ওভারে ১০ উইকেট হারিয়ে ১৩৯ রান করতে পারে বাংলাদেশ। এই নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজে টানা দ্বিতীয় দিনে দ্বিতীয় জয় তুলে নিল রশিদ খানরা। প্রথম ম্যাচে তারা জিম্বাবুয়েকে হারিয়েছে। অন্যদিকে বাংলাদেশও প্রথম ম্যাচে মাসাকাদজাদের বিপক্ষে জয়ের স্বাদ নিয়ে আফগানদের মুখোমুখি হয়েছিল।

কিন্তু ব্যাটসম্যানদের ধারাবাহিক ব্যর্থতায় আরেকবার আফগানদের কাছে টি-টোয়েন্টিতে পরাজিত হল বাংলাদেশ। ১৬৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ৩২ রানে টপ-অর্ডারের চার উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে টাইগাররা।

স্কোরবোর্ড শূন্য রেখে মুজিব উর রহমানের বলে ডাক নিয়ে প্রথমে সাজঘরে ফেরেন লিটন দাস। এরপর ফরিদ মালিকের বলে বোল্ড হোন মুশফিক (৫)। তাদের বিদায়ের পরপরই মুজিব নিজের দ্বিতীয় শিকার বানান সাকিবকে (১৫)। সৌম্যকে গোল্ডেন ডাক উপহার দেন মুজিবই।

শুরুর ধাক্কাটা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন মাহমুদউল্লাহ ও সাব্বির রহমান। দু’জনের ৫৮ রানের জুটি ভাঙেন গুলবাদিন নাঈব। ছ্ক্কা মারতে গিয়ে ৩৯ বলে ৪৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন মাহমুদউল্লাহ। এর পরপরই ফেরত যান সাব্বির (২৪)।

afghগত ম্যাচের মতো এবারও আফিফ হোসেন ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত আশা বাঁচিয়ে রেখেছিলেন। কিন্তু গেঁড়ে বসা চাপ সামাল দিতে পারেননি। আফিফ (১৬) ফিরেন নাঈবের বলে। মোসাদ্দেক ( ১২) বোল্ড হোন রশিদের বলে। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে ৭ বলে ২ চার ও ১ ছ্ক্কায় ১৫ রানের ইনিংস খেলেন মোস্তাফিজুর রহমান। তার আগে রশিদ তুলে নেন সাইফউদ্দীনকে (২)। শূন্য রানে অপরাজিত ছিলেন তাইজুল।

এর আগে টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৬৪ রান করে আফগানিস্তান। ফিল্ডিংয়ে নেমে ইনিংসের প্রথম বল করতে এসে আফগান ওপেনার রহমানউল্লাহ গুরবাজের স্ট্যাম্প উপড়ে ফেলেছিলেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দীন। দ্বিতীয় ওভারে এসে তিনি নিজের দ্বিতীয় শিকার বানান নাজিব তারকাইকে (১১)।

এর সঙ্গে আফগানিস্তানকে জোড়া আঘাত দিয়েছিলেন সাকিব। টাইগার অধিনায়ক তার ঘূর্ণিতে বোকা বানান হযরতউল্লাহ জাজাই (১) ও নাজিবুল্লাহ জাদরানকে (৫)। কিন্তু শুরুর দুর্দান্ত মুহুর্তটা ধরে রাখতে পারেনি বাংলাদেশ।

৫.৫ ওভারে দলীয় ৪০ রানে ৪ উইকেট হারানো আফগানদের ভাল সংগ্রহ এনে দিয়েছেন মোহাম্মদ নবী ও আসগর আফগানের ৭৯ রানের জুটি। সেই জুটিও ভাঙেন সাইফ। বিদায় করেন আফগানকে (৩৯)। এর পরপরই গুলবাদিন নাঈবকে ডাক উপহার দেন সাইফ। সতীর্থদের হারালেও ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ফিফটি তুলে নেন নবী। শেষ পযর্ন্ত এই আফগান অলরাউন্ডার অপরাজিত ছিলেন ৫৪ বলে ৮৪ রান করে।

রোববার (১৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের তৃতীয় ও নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান। এই জয়ে ২ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ওঠেছে আফগানিস্তান। সমান ম্যাচে ২ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে আছে বাংলাদেশ। কোনো পয়েন্ট পায়নি জিম্বাবুয়ে।