cosmetics-ad

সাড়ে তিন মাসই চোখ বাঁধা ছিল মুজিবুরের

অপহরণের পর মাইক্রোবাসে তুলেই কালো কাপড় দিয়ে চোখ বাঁধা হয়। ৩ মাস ১২ দিন চোখ বাঁধা অবস্থায় ছোট্ট একটি রুমে রাখা হয়েছিল। মাঝে মধ্যেই চলত নির্যাতন। চোখ বাঁধা অবস্থায় পাহারাদাররা বলে দিত প্লেটে কী খাবার আছে। বাথরুমে যাওয়ার সময় পাহারাদাররা নিয়ে যেত। এ সময়ের মধ্যে গাড়িরচালক কিংবা অন্য কারও সঙ্গে দেখা হয়নি।

অপহরণকারীরা তারেক রহমান সম্পর্কে জানতে চাইত বলে জানান অপহরণের পর মুক্ত হওয়া যুক্তরাজ্যপ্রবাসী সুনামগঞ্জের বিএনপি নেতা মুজিবুুর রহমান। মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি এসব কথা বলেন। হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ মারাত্মকভাবে কমে গেলেও খুব দ্রুততার সঙ্গে শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে বলে চিকিৎসকরা জানান। এদিকে নিখোঁজ হওয়ার পর উদ্ধার হলেও মঙ্গলবার রাত ১০টা পর্যন্ত ফেরেননি মুজিবুুর রহমানের গাড়িচালক রেজাউল হক। পরিবারের সঙ্গে তার যোগাযোগ হয়নি। খোঁজ না পেয়ে তার পরিবার উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে।

다운로드 (25)

৪ মে ‘হত্যা-গুম’ এর প্রতিবাদে সুনামগঞ্জে বিএনপির এক সমাবেশে যোগ দিয়ে সিলেটে যাওয়ার পথে মুজিবুর রহমান ও তার গাড়িচালক রেজাউল নিখোঁজ হন। মুজিবুুর রহমান যুক্তরাজ্য বিএনপির উপদেষ্টা ও সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য। ৩ মাস ১২ দিন নিখোঁজ থাকার পর সোমবার রাতে গাজীপুরের টঙ্গীতে গাড়িচালকসহ তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। পরে একটি সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে তিনি গুলশানে এক আত্মীয়ের বাসায় আসেন। মুজিবুুর রহমান আরও জানান, সুনামগঞ্জ থেকে সিলেটে আসার সময় টুকেরবাজার এলাকায় একটি মাইক্রোবাস তার গাড়িকে ব্যারিকেড দিয়ে থামায়। এরপর গাড়ি থেকে পুলিশের পোশাক পরা কয়েকজন নেমে আসেন। তারা চালকের কাজগপত্র দেখে ভুয়া বলে দাবি করেন। এ সময় পুলিশের পোশাক পরা ব্যক্তিরা বলেন, চালকের কাগজপত্র ভুয়া। তাকে পুলিশ গ্রেফতার করবে। এ সময় তাদের মাইক্রোবাসে করে সিলেট পৌঁছে দেয়ার প্রস্তাব দেয়। পুলিশ ভেবে ওই মাইক্রোবাসে তিনি ওঠেন। মাইক্রোবাসে ওঠার কয়েক মিনিটের মাথায় তাকে চেতনানাশক দিয়ে অজ্ঞান করা হয়। এর পর যখন তিনি চেতনা ফিরে পান, তখন তাকে মারধর করা হচ্ছিল। তিনি একটি রুমের মধ্যে ছিলেন। ঘটনার দিন যে রুমে তাকে রাখা হয়েছিল, মুক্তি দেয়ার আগ পর্যন্ত একটানা একই রুমে রাখা হয়। এ সময়ের মধ্যে তার চোখ বেঁধে রাখা হয়। গাড়িচালকের সঙ্গেও তার দেখা হয়নি। মুক্তি দেয়ার দিন তাকে এবং গাড়িচালককে একসঙ্গে গাড়িতে তোলা হয়। তাকে একটি দোতলা বাড়িতে রাখা হয়েছিল। প্রায় এক ঘণ্টা গাড়ি চালানোর পর তাদের দুজনকে টঙ্গী এলাকায় ফেলে যায় অপহরণকারীরা। আলোকিত বাংলাদেশ।