sentbe-top

কোরিয়ায় উচ্চশিক্ষার সুযোগ কাজে লাগাতে পারছে না বাংলাদেশী ছাত্রছাত্রীরা

কোরিয়ায় উচ্চশিক্ষার জন্য পর্যাপ্ত সু্যোগ থাকলেও তথ্যের অভাবে বাংলাদেশীরা সেই সুযোগগুলো ব্যবহার করতে পারছেনা। কোরিয়ার সরকারী স্কলারশীপ ছাড়াও প্রচুর স্কলারশীপ পাওয়া যায় বিভিন্ন ফান্ড থেকে যা প্রফেসরের মাধ্যমে আবেদন করতে হয়। কোরিয়ায় ফান্ড এবং স্কলারশীপের পরিমাণ ইউরোপ আমেরিকার তুলনায় কোন অংশেই কম নয়। গবেষণার মান, ইউনিভার্সিটিরগুলোর ভাল অবস্থান এবং পর্যাপ্ত স্কলারশীপ থাকার পরও ভিয়েতনামিজ, চায়নিজদের মত বাংলাদেশীরা সুবিধাগুলো গ্রহণ করতে পারছে না। আজ সিউলের খোয়াংহোয়ামুনের ওলে স্কোয়ারে বাংলা টেলিগ্রাফের এক গোলটেবিল বৈঠকে আলোচকরা এই অভিমত ব্যক্ত করেন।

কোরিয়ার একমাত্র বাংলা অনলাইন পত্রিকা বাংলা টেলিগ্রাফের কোরিয়া অভিজ্ঞতা নিয়ে গোলটেবিল বৈঠক সিরিজের “কোরিয়ায় উচ্চশিক্ষাঃ সমস্যা ও সম্ভাবনা” শীর্ষক প্রথম বৈঠক আজ অনুষ্ঠিত হয়। অনু্ষ্ঠানে সার্বিক সহযোগিতায় ছিল বাংলাদেশ স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন ইন কোরিয়া (বিএসএকে)।

editমোহাম্মদ আল আমিনের সঞ্চালনায় গোলটেবিল বৈঠকে আলোচক হিসেবে কোরিয়ায় উচ্চশিক্ষার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা রাখেন ড: জালাল আহমেদ, ড: হুমায়ুন কবির, পিএইচডি গবেষক আব্দুর রহিম, তাওহীদ রাসেল, রাজিয়া সুলতানা,মোহাম্মদ শাফি, আব্দুল্লাহ আল-ফাহাদ, আশুতোষ অধিকারী, আসাদুজ্জামান আসাদ এবং সরওয়ার কামাল।

গোলটেবিল বৈঠকে কোরিয়ায় বাংলাদেশী ছাত্রছাত্রীদের সংখ্যা বৃদ্ধি, কোরিয়ায় গবেষণা, ছাত্রছাত্রীদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান, মাস্টার্স, পিএইচডি পর্যায়ে স্কলারশীপ পাওয়াসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রস্তাবনা তুলে ধরে হয়। আলোচকরা বলেন কোরিয়ায় স্কলারশীপ পাওয়ার প্রসেস এবং সুযোগগুলো অনলাইনে প্রকাশ করে বাংলাদেশী ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য সিরিজ আকারে প্রতিবেদন প্রকাশ করা উচিত। বাংলাদেশী ছাত্রছাত্রীদের সুযোগ সুবিধা আরো কিভাবে বাড়ানো যায় সেসব বিষয়েও আলোচকরা বক্তব্য রাখেন।

উল্লেখ্য, গোলটেবিল বৈঠকের বিষয়ভিত্তিক আলোচনা এবং প্রস্তাবনাগুলো পরবর্তীতে বাংলা টেলিগ্রাফ এবং বিএসএকে’র ওয়েবসাইট (http://www.bsak.org)            এ প্রকাশ করা হবে।

sentbe-top