sentbe-top

ঢাকা থেকে গাড়ি চালিয়ে নিউ ইয়র্ক!

dhaka to new yorkঢাকা থেকেই গাড়ি নিয়ে যাওয়া যাবে সোজা নিউ ইয়র্ক! কথাটা আপনি বিশ্বাস করেন আর নাই করেন এটাই বাস্তব হতে চলেছে। তবে এ জন্য আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে আরও কয়েকটা বছর। এর নেপথ্যের কারিগর রাশিয়া।

এটি হবে বিশ্বের দীর্ঘতম মহাসড়ক-‘ট্রান্স ইউরেশিয়ান বেল্ট ডেভেলপমেন্ট’, এর দৈর্ঘ হবে ২০ হাজার কিলোমিটার। আর দিল্লি থেকে যেতে হলে, যোগ হবে আরও ১৪ হাজার কিলোমিটার পথ। মানে, সবমিলিয়ে আপনাকে পাড়ি দিতে হবে ৩৪ হাজার কিলোমিটার পথ। আর এই নিউইয়র্ক যাওয়ার পথেই, সাইবেরিয়া, আলাস্কা কিছুই বাদ যাবে না। এক যাত্রায় মিনি বিশ্বভ্রমণ হয়ে যাবে।

ঢাকা থেকে নেপাল, তিব্বত হয়ে সোজা চীন। তবে, মাথায় রাখবেন, চীনে যখন গাড়ি নিয়ে পৌঁছাবেন, নতুন করে আপনাকে চাইনিজ রেজিস্ট্রেশন প্লেট করাতে হবে। চীন থেকে বেরোনোর আগে পর্যন্ত ওই রেজিস্ট্রেশন প্লেটটি রাখা বাধ্যতামূলক। আর সহজেই মিলবে রেজিস্ট্রেশন প্লেট।

এরপর কাজাখস্তান হয়ে সোজা রাশিয়া। মানে, পেয়ে যাবেন ট্রান্স সাইবেরিয়ান হাইওয়ে। এরপর জাহাজে সমুদ্র ডিঙিয়ে আলাস্কা, সেখান থেকে ফের গাড়ি চালিয়ে কানাডা হয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

রাশিয়ান অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্স-এর বৈঠকে প্রথম এই পরিকল্পনা দেয়া হয়। যাঁদের মস্তিষ্কপ্রসূত তাঁদের অন্যতম রাশিয়া রেলের প্রধান ভ্লাদিমির ইয়াকুনিন। শুধু যে দীর্ঘতম হাইওয়ে হবে, তাই শুধু নয়। পাশাপাশি হাইস্পিড রেলওয়ের পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন ভ্লাদিমির। এই গোটা পরিকল্পনাটাকে বলা হচ্ছে, ট্রান্স-ইউরোশিয়ান বেল্ট ডেভেলপমেন্ট। যাকে, ইন্টারন্যাশনাল রোড অফ রাশিয়া (আইআরআর)-ও বলতে পারেন।

যদি, শেষ পর্যন্ত হাইওয়েটি দিনের আলো দেখে তাহলে ব্রিটেন থেকে রওনা হয়ে সোজা সড়কপথে দক্ষিণ আমেরিকার কেপ হর্ন পর্যন্ত পৌঁছে যাওয়া যাবে। সবমিলিয়ে ২০ হাজার ১৪৭ কিলোমিটার। একই সঙ্গে জুড়বে উত্তর আমেরিকার সঙ্গে এশিয়াও। ফ্রান্স, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ড, জার্মানি, পোল্যান্ড, বেলারুশ, রাশিয়া… সব দেশের উপর দিয়েই যাচ্ছে দীর্ঘতম এই হাইওয়ে।

আশা করা হচ্ছে, ২০২০ সালের মধ্যে এই হাইওয়ের কাজ শেষ হয়ে যাবে। তবে সম্পূর্ণ রূপে চালু হতে ২০৩০ সাল লেগে যাবে।

sentbe-top