cosmetics-ad

উত্তর কোরিয়ার হুমকি ঠেকানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে জাপান-গুয়াম

north-korea-attack

উত্তর কোরিয়ার সম্ভাব্য ক্ষেপণাস্ত্র হামলা প্রতিরোধের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে গুয়াম, জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া। নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করে জুলাইয়ে দুইটি আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার জেরে যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবে উত্তর কোরিয়ার উপর নতুন করে কঠোর বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে জাতিসংঘ।

তারপরই যুক্তরাষ্ট্রকে ‘চরম সংকেত দিতে’ অগাস্টের মাঝামাঝিতে দেশটির প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ গুয়ামের কাছে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার হুমকি দেয় উত্তর কোরিয়া। যা নিয়ে ওই অঞ্চলে ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে।

সিএনএন জানায়, গুয়ামের জয়েন্ট ইনফরমেশন সেন্টার থেকে শনিবার স্থানীয় বাসিন্দাদের সম্ভাব্য ক্ষেপণাস্ত্র হামলা মোকাবেলায় করণীয় সম্পর্কে সতর্ক করা হয়েছে।

সতর্কবার্তায় বাসিন্দাদের ‘আকস্মিক তীব্র আলোক ঝলকানি বা অগ্নিকুণ্ডের দিকে তাকাতে নিষেধ করা হয়েছে’। “এরকম পরিস্থিতিতে সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে শুয়ে পড়ে মাথা ঢেকে ফেলতে হবে। যদি বিস্ফোরণ কিছুটা দূরে হয় তবে বিস্ফোরণের ধাক্কা আসতে ৩০ সেকেন্ড বা তার কিছু বেশি সময় লাগতে পারে।”

এর আগে শুক্রবার গুয়ামের হোমল্যান্ড সিকিউরিটি অ্যাডভাইজার জর্জ শারফাউরোস বলেন, “যদি উত্তর কোরিয়া ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ে তবে তা গুয়াম পৌঁছাতে ১৪ মিনিট সময় লাগবে।”

ওদিকে, জাপানে ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ব্যবস্থা মোতায়েনের কাজ শুরু হয়েছে। সিএনএন জানায়, শনিবার থেকে জাপানের সেল্ফ ডিফেন্স ফোর্সের (এসডিএফ) একাধিক ঘাঁটিতে ভূমি-ভিত্তিক ক্ষেপণাস্ত্র ভূপতিতকরণ যন্ত্র প্যাটরিয়ট অ্যাডভান্সড ক্যাপাবিলিটি-৩ (পিএসি-৩) স্থাপণের কাজ শুরু হয়েছে।

জাপানের শিমানে, হিরোশিমা বা কোচির উপর দিয়ে গুয়ামের জলসীমায় ৩০ কিলোমিটারের মধ্যে চারটি হোয়াসং-১২ ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার পরিকল্পনার ঘোষণা দিয়েছে উত্তর কোরিয়া।

এসডিএফর একজন মুখপাত্র বলেন, “যদিও (উত্তর কোরিয়ার) ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংস করার জন্য আমরা আমাদের ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ব্যবস্থা মোতায়েন করছি না, কিন্তু হয়ত বিশেষ ক্ষেত্রে এটি কাজে লাগতে পারে।”

একটি ব্যক্তি মালিকানাধীন গোয়েন্দা প্রতিষ্ঠানের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, জাপান হয়ত নিজেদের এলাকার সুরক্ষার জন্য ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী যন্ত্র মোতায়েন করছে। খুব সম্ভবত তারা তাদের আকাশ দিয়ে উড়ে যাওয়া ক্ষেপণাস্ত্র ভূপতিত করবে না।”

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সং ইয়ং-মু সেনাবাহিনীকে সম্ভাব্য হামলার ‘পূর্ণ প্রস্তুতি’ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। ২১ অগাস্ট থেকে কোরীয় উপদ্বীপে যুক্তরাষ্ট্র-দক্ষিণ কোরিয়া ১০ দিনের বার্ষিক যৌথ সামরিক মহড়া শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

উত্তর কোরিয়ার সবচেয়ে শক্তিশালী মিত্র চীন। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ফোনে উত্তর কোরিয়ার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলেছেন।
তিনি ট্রাম্পকে উত্তর কোরিয়া নিয়ে ধৈর্য ধারণের আহ্বান জানিয়েছেন এবং উভয় পক্ষকে উসকানি মূলক ‘কথা ও কাজ’ বন্ধের আহ্বানও জানিয়েছেন।