cosmetics-ad

‘আমার কাঁধে ভর দিয়ে বাবা আর মসজিদে আসেন না’

somrat-rajjak

গুলশানের আজাদ মসজিদে অনুষ্ঠিত হলো নায়করাজ রাজ্জাকের কুলখানি ও মিলাদ মাহফিল। পারিবারিক এ আয়োজনে নায়করাজের পরিবার থেকে উপস্থিত ছিলেন, নায়করাজের স্ত্রী লক্ষ্মী, ছেলে বাপ্পারাজ, বাপ্পী ও সম্রাট।

দোয়া মাহফিলে উপস্থিত সকলের সামনে বক্তব্য দেন রাজ্জাকের ছোট ছেলে সম্রাট। এ সময় তিনি বলেন, ‘আমার বাবা সাতবার হজ পালন করেছেন। তিনি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করতেন। প্রতিদিন ভোর ৪টায় ঘুম থেকে উঠে ওজু করে আমার বাম কাঁধে ভর দিয়ে এই মসজিদে এসে নামাজ পড়তেন। আমি বাবার পাশে নামাজ পড়তাম। আজকে বাবা নেই। আমার পাশে এখন আর বাবা নামাজ পড়েন না। আমার কাঁধে ভর দিয়ে এখন আর তিনি মসজিদে আসেন না। বাবার জন্য সকলে দোয়া করবেন। আল্লাহ যেন উনাকে বেহেশত নসিব করেন।’

এছাড়া দোয়া মাহফিলে উপস্থিত হয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, চিত্রনায়ক আলমগীর, পরিচালক ছটকু আহমেদ, শাকিব খান, জায়েদ খানসহ আরো অনেকে।

২১ আগস্ট বিকেলে হৃদরোগে আক্রান্ত রাজ্জাককে রাজধানীর একটি হাসপাতালে নেওয়া হলে সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে তার মৃত্যু হয়। এরপর ২২ আগস্ট বেলা ১১টার দিকে এফডিসিতে প্রথম জানাজা শেষে সর্বসাধারণের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য তার মরদেহ নেওয়া হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সেখানে ভক্ত-অনুরাগী ও সহকর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষ কিংবদন্তি এই অভিনেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

এরপর গুলশানের আজাদ মসজিদে বাদ আসর নায়করাজের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। তবে জানাজার পর দাফন হওয়ার কথা থাকলেও তা পিছিয়ে দেওয়া হয়। রাজ্জাকের মেজো ছেলে বাপ্পী কানাডা থেকে ২৩ আগস্ট ভোরে ঢাকায় আসেন। ওই দিন সকাল সাড়ে ১০টায় বনানী কবরস্থানে নায়করাজের দাফন সম্পন্ন হয়।