cosmetics-ad

দ্বিতীয় দিনেও সেরা সাকিব

shakib

বাংলাদেশ দলের কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে জানিয়েছিলেন, অস্ট্রেলিয়াকে ২-০তে হারাতে চান। এরপর হাথুরুর সুর ধরেন সাকিব আল হাসানও। স্টিভেন স্মিথ বাহিনী বাংলাদেশে পা রাখার পর সাকিব জানিয়েছিলেন, অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ করার লক্ষ্যেই মাঠে নামবেন টাইগাররা।

এ কথা শুনে বিস্মিত হয়েছিলেন অসি অধিনায়ক স্মিথ। সাকিবকে তো পাল্টা জবাব দিয়েছিলেন অসি স্পিনার নাথান লিওন। এরপর অবশ্য সাকিব কোনো মন্তব্য করেননি। মাঠেই তার জবাব পেয়ে যাবে অস্ট্রেলিয়া, এজন্যই হয়তো সাকিব আর মুখ খোলেননি।

আর মাঠেই যদি জবাবটা দেয়া যায়, তাহলে মন্দ কিসে? সেই কাজটাই বোধ হয় করে যাচ্ছেন সাকিব। ব্যাটে-বলে দুই বিভাগেই সমানতালে রাখছেন অবদান। টস জিতে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশ ১০ রানের মাথায় তিন উইকেট হারিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে।

বাংলাদেশকে খাদের কিনার থেকে টেনে তোলেন সাকিব। বন্ধু তামিম ইকবালের সঙ্গে ১৫৫ রানের জুটি গড়ে দলকে নিয়ে যান ভালো অবস্থানে। তামিম আউট হয়েছেন ৭১ রানে। বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮৪ রানের ইনিংসটি সাকিবের। এরপর বল হাতে একটি উইকেট নেন তিনি। প্রথম দিনের সেরা তো সাকিবই।

দ্বিতীয় দিনে আরও উজ্জ্বল সাকিব। ২৫.৫ ওভারে ৭টি মেডেনসহ ৬৮ রান দিয়ে পাঁচ উইকেট নিয়েছেন তিনি। টেস্টে ১৬ বারের মতো ৫ উইকেট দখলে নেন সাকিব। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে চতুর্থ বোলার হিসেবে সব দেশের বিপক্ষে পাঁচ উইকেট দখলে নেয়ার কীর্তি গড়েন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং লাইন-আপের মেরুদণ্ড ভেঙে দেন সাকিব। স্পিন আক্রমণে মেহেদী হাসান মিরাজ যোগ্য সঙ্গ দিলে অস্ট্রেলিয়া অলআউট হয়ে যায় ২১৭ রানে। বাংলাদেশ পেয়ে যায় ৪৩ রানের লিড। প্রথম দিনের মতো দ্বিতীয় দিনের সেরা পারফরমার ওই সাকিবই।

এটা (দিনের সেরা পারফরমার) আসলে আনুষ্ঠিকভাবে ঘোষণা দেয়া হয় না। শুধু পারফরম্যান্স বিচার করেই দিনের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচন করা যায়। আনুষ্ঠানিকভাবে সেরা খেলোয়াড় নির্বাচন বা ঘোষণা করা হয় ম্যাচ শেষে।