sentbe-top

মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে যত আশা অধিনায়কের

mahmudullahসাকিব আল হাসান, ‘টু ইন ওয়ান’। বারবার বলা হচ্ছে এমন কথা। দেশ ছাড়ার আগে শেষ মিডিয়া সেশনে বাংলাদেশ অধিনায়ক মুশফিকুর রহীমের মুখেও সে কথা।

‘আসলে সাকিবের জায়গায় দুইজন খেলোয়াড়কে খেলাতে হয়। ওর জায়গায় যে কোন খেলোয়াড় দিয়েই পূরন করা যায় না। রিপ্লেস করা যায় না। ওর মতো নাম্বার ওয়ান ক্রিকেটারকে মিস করা অধিনায়ক হিসেবে আমার জন্য খারাপ খবরই’- বলছিলেন মুশফিক।

একই সঙ্গে তিনি জানিয়ে দিলেন, যারা সাকিবের পরিবর্তে সুযোগ পাচ্ছেন- তাদের জন্য এটা দারুণ এক সুযোগ। তিনি বলেন, ‘তবে এটা ওর জায়গায় যারা খেলতে আসছে তাদের জন্য দারুন সুযোগ। আমি বলবো, ওর জায়গায় যারা খেলবে এই সুযোগটা তাদেরও নতুনভাবে নেয়া উচিত।’

এরপরও সাকিব না থাকার অতৃপ্তি মুশফিকের কণ্ঠে, ‘সাকিব থাকলে যে কোন অধিনায়কের জন্যই প্লাস পয়েন্ট। তারপরও সাকিব ছাড়া আমরা ওয়েস্ট ইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচ জিতেছি। ওকে অনেক মিস করবো। আশা করি ও যে কারনে ব্রেকটা নিয়েছে সেটা যেন ফুলফিল করে ফ্রেশ হয়ে ফিরতে পারে।’

এদিকে সাকিবের জায়গায় অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের অন্তর্ভুক্তিতে খুশি মুশফিকুর রহীম। তার অনুভব ও উপলব্দি, মাহমুদউল্লাহ সাকিবের যোগ্য বিকল্প। মাহমুদউল্লাহর অভিজ্ঞতা আর স্পিন বোলিং কাজে লাগানোর কথাই ভাবছেন তিনি।

মুশফিক বলেন, ‘রিয়াদ ভাইকে কিন্তু অলরাউন্ডারই বলা যায়। তিনি সব দিক থেকেই দলে অবদান রাখার চেষ্টা করেন। একজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের বদলে একজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড় দলে এসেছে। আমাদেরও একটা ব্যালেন্স আসবে, ব্যাটিংয়ে এবং বোলিংয়ে। ওই কন্ডিশনে বিশেষজ্ঞ স্পিনার দুইজন খেলোনোর প্রয়োজন নেই। সেখান থেকে চিন্তা করলে রিয়াদ ভাইয়ের জন্য ভালো সুযোগ আছে।’

তার মানে দক্ষিণ আফ্রিতা সফরে মাহমুদউল্লাহ শুধু ব্যাটসম্যান হিসেবেই সাকিবেরই বিকল্প নন, স্পিন ব্যাকআপও বটে।

sentbe-top