sentbe-top

দক্ষিণ কোরিয়ার শীর্ষ দশ তারকা দম্পতি

কোরিয়ার রূপালী জগতের তারকাদের মধ্যে জীবনসঙ্গী হিসেবে বিপরীত লিঙ্গের কোন তারকাকেই বেছে নেয়ার প্রবণতা বাড়ছে। আবার কারও কারও পূর্ব তারকাখ্যাতি না থাকলেও সঙ্গী বা সঙ্গিনীর সৌজন্যে গণমাধ্যমের শিরোনাম হয়ে যাচ্ছেন। দক্ষিণ কোরিয়ায় সময়ের আলোচিত এমনই দশ সেলিব্রেটি দম্পতিকে নিয়ে বাংলা টেলিগ্রাফের পাঠকদের জন্য লিখেছেন মোঃ মহিবুল্লাহ।

১। লি বিয়ং হন ও লি মিন জং: জয়েন্ট সিকিউরিটি এরিয়া (২০০০), অ্যা বিটারসুইট লাইফ (২০০৫), খাংহে’র (২০১২) মতো বিখ্যাত সব চলচ্চিত্রের নায়ক লি বিয়ং হন গেলো আগস্টে গাঁটছড়া বেঁধেছেন ছোট পর্দার জনপ্রিয় মুখ লি মিন জংয়ের সাথে। ২০০৬ সালে সংক্ষিপ্ত অভিসারের পর বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া এ জুটিকে এক বছর যাবত আবার একসাথে দেখা যাচ্ছিলো।

20130611000783_0

কুঁড়ি বছরের বেশি সময় ধরে টিভি সিরিয়াল ও সিনেমায় নিয়মিত অভিনয় করা লি বিয়ং হন প্রতিভার সাক্ষর রেখেছেন হলিউডেও। জি. আই. জোয়ি সিরিজের দ্য রাইজ অব কোবরা ও রিটালিয়েশনের পাশাপাশি তাঁর ব্যবসা সফল ছবির তালিকায় রয়েছে দ্য গুড, দ্য ব্যাড, দ্য উইয়ার্ড (২০০৮), আই স দ্য ডেভিল (২০১০), রেড টু (২০১৩) ইত্যাদি।

দীর্ঘদিন মঞ্চে কাজ করা লি মিন জং প্রথম আলোচনায় আসেন ২০০৯ সালে জনপ্রিয় পারিবারিক নাটক ‘স্মাইল, ইউ’ দিয়ে। তাঁর দর্শকপ্রিয় ছবিগুলোর মধ্যে অন্যতম রোমান্টিক কমেডি ফিল্ম সাইরানো এজেন্সী (২০১০) ও ওয়ান্ডারফুল রেডিও (২০১২)। সাম্প্রতিক ‘অল এবাউট মাই রোমান্স’ নাটকে তাঁকে দেখা গেছে একজন রাজনীতিবিদের চরিত্রে।

২। হান হে জিন ও কি সুং ইয়োং: অভিনেত্রী হান হে জিন ও দ. কোরিয়া জাতীয় দলের ফুটবলার কি সুং ইয়োংবাগদান সম্পন্ন করেছেন গত জুলাইতে। আট বছরের ছোট কি সুংয়ের সাথে হে জিনের প্রনয়ের সূত্রপাত এ বছরের শুরুতে, জনপ্রিয় টিভি টক শো এসবিএস ‘হিলিং ক্যাম্প’-এ। শোটির উপস্থাপিকা হে জিনের তারকাখ্যাতি ২০০৫ সাল থেকে, প্রতিদিনের ধারাবাহিক ‘বি স্ট্রং-গিওম সুন’- এ অভিনয়ের মাধ্যমে। 20130611000784_0৩২ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন জুমং (২০০৬-০৭), জেজুংউওন (২০১০) ইত্যাদি নাটকে। বিয়ের পর তাঁর যুক্তরাজ্য চলে যাওয়ার কথা থাকলেও অভিনয় অব্যাহত রাখবেন বলে জানিয়েছেন। জাতীয় দলের পাশাপাশি কোরিয়ান প্রিমিয়ার লীগ টীম সানসি সিটির কেন্দ্রীয় মধ্যভাগে খেলা কি সুং এর আগে খেলেছেন এফসি সিউল ও সেল্টিকের হয়ে।

৩। স’ তে জি ও লি উন সং: বয়সে ১৬ বছরের ব্যবধানকে উপেক্ষা করে চার বছর ধরে চলা প্রণয়কে খুব শীঘ্রই পরিনয়ের রূপ দিতে যাচ্ছেন কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী স’ তে জি ও অভিনেত্রী লি উন সং। ২০০৮ সালে তে জির অষ্টম একক ‘বারমুডা ট্রায়াংগেল’ -এর একটি মিউজিক ভিডিওতে অভিনয় করেন লি উন সং। সেই থেকে বন্ধুত্ব, প্রেম অবশেষে বিয়ের সিদ্ধান্ত। বর্তমানে তাঁরা স’র বাবা-মার সাথে এক ছাদের নীচেই বাস করছেন। ২০০৬ সালে অভিনেত্রী লি জি-আহ’র সাথে ছাড়াছাড়ি হয়ে যাবার পর এটি স’র দ্বিতীয় বিয়ে।

20130611000785_0তাই-জি নব্বই দশকের শুরুতে কোরিয়ান সংগীতে নতুন ধারার সূচনা করা প্রথম আধুনিক ব্যান্ড স’ তে জি এন্ড বয়েজ’-এর প্রতিষ্ঠাতা। ১৯৯৬ সালে ব্যান্ডটি ভেঙে গেলে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান। সেখান থেকেই নিয়মিত বিরতিতে বের হয়েছে তাঁর বেশ কয়েকটি একক অ্যালবাম। লি উন সং এর উল্লেখযোগ্য কাজের মধ্যে রয়েছে নাটক শার্প (২০০৩-০৫), টিভি ধারাবাহিক এভাসিভ ইনকোয়ারি এজেন্সী (২০০৭) ও চলচ্চিত্র টেক অফ (২০০৯)। ২০০৯ সালের পর তাঁকে আর পর্দায় দেখা যায় নি।

৪। বেক জি ইয়ং ও জাং গুন সক: তিন বছরের প্রেম শেষে গত জুনে বিয়ে করেছেন সংগীতশিল্পী বেক জি ও অভিনেতা জাং গুন সক। বর্তমানে এই তারকা যুগল প্রথম সন্তানের অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন। স্বামীর থেকে বয়সে নয় বছরের বড় বেক জির (৩৮) শিল্পী হিসেবে অভিষেক ১৯৯৯ সালে। ব্যালাড থেকে শুরু করে লাতিন স্টাইল ড্যান্স মিউজিকে দারুণ পারদর্শী বেককে কোরিয়ায় সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় নারী নৃত্য শিল্পীদের একজন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সম্প্রতি তিনি একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের সংগীত প্রতিভা অন্বেষণ প্রোগ্রাম ‘ভয়েস কোরিয়া’য় সংগীত শিক্ষক হিসেবে যোগ দিয়েছেন।

20130611000786_0অন্যদিকে রুফটপ প্রিন্স (২০১২), হুন্দাই লাভারসের (২০১২) মতো দর্শকপ্রিয় বেশ কিছু টিভি নাটকে কাজ করা জাং গুন সক এই মুহূর্তে ইয়নপইয়ংদো আইল্যান্ডের যুদ্ধের উপর নির্মিতব্য ‘এন.এল.এল – ব্যাটল অব ইয়নপইয়ং’-এর শুটিংয়ে ব্যস্ত আছেন।

৫। শিন হিউন জুন ও কিম কুং মি: রাস্তায় চলতে চলতে আচমকা কোন এক সুন্দরীকে চোখে পড়ে গেলো, আর প্রথম দেখাতেই ভালোলাগা থেকে ভালোবাসা, অতঃপর বিয়ে! না, কোন সিনেমার গল্প নয়; নিজের জীবনেই এমনটি ঘটেছে বলে দাবী অভিনেতা শিন হিউনের। পঁয়তাল্লিশ বছর বয়সী শিনের চেয়ে বারো বছরের ছোট কিম কুং-মি একজন কোরিয়ান বংশোদ্ভূত অ্যামেরিকান। বর্তমানে সংগীত বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রি নিতে যুক্তরাষ্ট্রে অধ্যয়নরত আছেন।

20130611000787_0১৯৯০ সালে জেনারেল’স সন ছবি দিয়ে বড় পর্দায় পা রাখা শিন বিভিন্ন রকম চরিত্রে অভিনয় করে প্রশংসিত হয়েছেন। তাঁর ক্যারিয়ার সেরা মুভিগুলোর মধ্যে অন্যতম দ্য গিঙ্কো বেড (১৯৯৬), বেয়ারফুট কি-বোং (২০০৬), সিরিজ ফিল্ম ম্যারিয়িং দ্য মাফিয়া ইত্যাদি। বর্তমানে তিনি কেবিএস২ চ্যানেলের বিনোদন সংবাদের অনুষ্ঠান ‘এন্টারটেইনমেন্ট রিলে’ উপস্থাপনা করছেন।

৬। সুন ইয়ে: জনপ্রিয় কোরিয়ান পপ গ্রুপ ‘ওয়ান্ডার গার্লস’-এর অন্যতম সদস্য সুন-ইয়ে এ বছরের জানুয়ারীতে আনুষ্ঠানিকভাবে জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নিয়েছেন কোরিয়ান-কানাডিয়ান মিশনারী জেমস পার্ককে। ২০১১ সালে হাইতিতে একটি মিশনারী সফরে দুজনের প্রথম সাক্ষাৎ। সুন বর্তমানে স্বামীর সাথে কানাডায় বাস করছেন।

20130611000788_0২০০১ সালে জেওয়াইপি ইন্টারন্যাশনালের টিভি শো “পার্ক জিন-ইয়ং’স নাইন্টি নাইন পার্সেন্ট চ্যালেঞ্জ” প্রতিযোগিতার মাধ্যমে উঠে আসা সুন-ইয়ে কয়েক বছরের তালিম শেষে ওয়ান্ডার গার্লসে যোগ দেন। ‘টেল মি’, ‘নো বডি’র মতো বেশ কিছু শ্রোতাপ্রিয় গান নিয়ে গ্রুপটি যুক্তরাষ্ট্র থেকে একটি অ্যালবাম বের করে। এটি বিলবোর্ডের হট হান্ড্রেডেও স্থান পায়। সুন-ইয়ে এখনও পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে ওয়ান্ডার গার্লস ছাড়ার ঘোষণা না দিলেও গ্রুপটি আবার পরিবেশনায় ফিরে আসবে কিনা তা এখনও পরিষ্কার নয়।

৭। হাহা ও বুল: একসময়ের দুই ঘনিষ্ঠ বন্ধু এন্টারটেইনার হাহা ও গায়িকা বুলের আট মাসের প্রেম সফলভাবে বিয়েতে গড়িয়েছে গত বছর। আসছে গ্রীষ্মে এ দম্পতি প্রথম সন্তানের প্রত্যাশা করছেন। একটি হিপ হপ গ্রুপের মাধ্যমে ক্যারিয়ার শুরু করা হাহা পরবর্তীতে রকমারি বিনোদন অনুষ্ঠানে পারফর্ম করে নজর কাড়তে সক্ষম হন। 20130611000789_0বর্তমানে তিনি জনপ্রিয় এন্টারটেইনমেন্ট শো ‘ইনফাইনাইট চ্যালেঞ্জ’-এর একটি অন্যতম প্রধান চরিত্রে কাজ করছেন। ব্যালাড সিংগার বুলের প্রথম অ্যালবাম বের হয় ২০০২ সালে, ‘ডিসেম্বর থার্টি সেকন্ড’ শীর্ষক অ্যালবামটি ব্যবসাসফল না হলেও টাইটেল ট্র্যাকটি বেশ জনপ্রিয় হয়। দশ বছরের ক্যারিয়ারে অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে বুল শেষ পর্যন্ত একজন ব্যালাড ড্যান্সার হিসেবে নিজেকে চেনাতে সক্ষম হয়েছেন।

৮। জন জি-হিউন: মেগাহিট রোমান্টিক কমেডি ফিল্ম ‘মাই স্যাসি গার্ল’ খ্যাত অভিনেত্রী জন জি-হিউন এক পুরনো বন্ধু কাম প্রতিবেশীর সাথে পরিণয়সূত্রে আবদ্ধ হয়েছেন ২০১২ সালে। স্বামী ছই জুন-হুক পেশায় একজন ব্যাংকার; স্বনামধন্য হ্যানবক ডিজাইনার লি ইয়ং-হির নাতি।

20130611000790_0২০০৯ সালে জন হলিউড মুভি ‘ব্লাডঃ দ্য লাস্ট ভ্যাম্পায়ার’-এর কেন্দ্রীয় ভূমিকায় অভিনয় করেন। তাঁর সাম্প্রতিক কাজের মধ্যে উল্লেখযোগ্য দ্য থিভস (২০১২) ও স্পাই থ্রিলার দ্য বার্লিন ফাইল (২০১৩)।

৯। জুং জুন হো ও লি হা জুং: অভিনেতা জুং জুন-হো এবং উপস্থাপিকা লি হা-জুংয়ের বৈবাহিক জীবন দুই বছর পূর্ণ করেছে। জুং অভিনীত টিভি নাটক ‘আইরিশ’ ও ‘দ্য লাস্ট স্ক্যান্ডাল অব মাই লাইফ’ এখন প্রচারিত হচ্ছে। তাঁর চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে অন্যতম মাই বস, মাই ফাদার (২০০৫), দ্য সাইরেন (২০০০) ইত্যাদি। এই অভিনেতা 20130611000791_0‘লাভ ফুড কার’ নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনও প্রতিষ্ঠা করেছেন যেটি সুবিধাবঞ্চিতদের মাঝে বিনামূল্যে খাদ্য বিতরণ করে থাকে। লি হা-জুং বর্তমানে একটি স্যাটেলাইট চ্যানেলের সংবাদ অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করছেন।

১০। জাং দোং গুণ ও কো সো ইয়ং: চার বছরের ছেলে নিয়ে তারকা দম্পতি জাং দোং-গুণ ও কো সো-ইয়ংয়ের সুখের সংসার। ১৯৯৯ সালে ‘লাভ ওয়াইন্ড লাভ সং’ ছবির শুটিংয়ের সময় পরিচয়। বন্ধুত্ব, ঘনিষ্ঠতা ও দুই বছরের প্রেম বিয়ের মাধ্যমে পূর্ণতা পায় ২০১০ সালে। ফ্রেন্ড (২০০১), তেখুকগিঃ দ্য ব্রাদারহুড অব ওয়ার (২০০৪) -এর মতো চলচ্চিত্রের নায়ক জুং নব্বইয়ের শেষভাগ থেকেই বড় মাপের অভিনেতা হিসেবে পরিচিতি পেতে শুরু করেন। তাঁর অভিনীত বিদেশী চলচ্চিত্র ডেঞ্জারাস লিয়াজো (২০১২), দ্য ওয়ারিওর্স ওয়ে (২০১০) ইত্যাদি।

20130611000792_0১৯৯৭ সালে ‘বিট’ ছবিটি দিয়ে বড় পর্দায় আবির্ভূন হন কো সো। ২০০৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘প্রোজেক্ট মেকওভার’-এর পর তাঁকে আর সিনেমায় দেখা যায় নি। বর্তমানে টুকটাক বিজ্ঞাপন আর ফ্যাশন বিজনেসে জনসমক্ষে উপস্থিতি জানান দিচ্ছেন নাট্যকলা ও চলচ্চিত্রে স্নাতক ডিগ্রিধারী এই মডেল কাম অভিনেত্রী।

sentbe-top