কলেজ ছাত্রীদের নগ্ন করে নকল তল্লাশি

স্কুলের দুই নিরাপত্তারক্ষীর বিরুদ্ধে ছাত্রীদের নগ্ন করে তল্লাশির অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পুনের এমআইটি বিশ্বশান্তি গুরুকুল স্কুলে। অভিযুক্ত দুই কর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৫৪ ধারায় মামলাও দায়ের করা হয়েছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ বলছেন, নকল নিয়ে পরীক্ষার হলে ঢুকতে না দেয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা এমন অভিযোগ করছেন।

ঘটনার বিষয়ে ছাত্রীরা প্রথমে তাদের অভিভাবককে জানায়। পরে স্থানীয় পুলিশকে অভিযোগ করা হয়। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, ২১, ২৬ ও ২৮ ফেব্রুয়ারি এইচএসসি পরীক্ষার আগে এই ঘটনা ঘটে।

শনিবার এ বিষয়ে চার ছাত্রী অভিযোগ জানায়। তবে তারা বলছে, যেখানে তাদের পোশাক খুলে তল্লাশি করা হয় সেখানে প্রতিষ্ঠানের আরও শিক্ষার্থী ছিল।

এক ছাত্রী বলেন, ওরা প্যান্ট, অ্যাপ্রোন ও কুর্তা খুলে নকল খুঁজতে শুরু করে। যেসব মেয়েরা বলেছে তাদের মাসিক চলছে তাদের বাথরুমে নিয়ে গিয়ে কথার সত্যতা যাচাই করা হয়েছে। আমি প্রতিবাদ করি তাই আমাকে তারা স্পর্শ করেনি।

পুলিশ বলছে, অভিযোগের বিষয়ে তারা তদন্ত করে দেখছে। শিক্ষা বিভাগের এক কর্মকর্তা বলছেন, নকল নিয়ে কেউ ঢুকছে কি না তার তল্লাশি জরুরি কিন্তু সেটি কখনই এভাবে নয়।

এ বিষয়ে একজন অভিভাবক বলছেন, মেয়ের কাছে থেকে আমি ঘটনার বিষেয়ে জানতে পেরে অধ্যক্ষের সঙ্গে কথা বলি। তিনি আমাকে বলেন, পারলে কলেজের বিরুদ্ধে কিছু করতে। তল্লাশি চলবে।

যাদের তল্লাশি করা হয়েছে তাদের মধ্যে একজন বিবাহিতও ছিল। ওই ছাত্রীর স্বামীর পরিবার থেকে এখন তার পড়াশোনা বন্ধ করে দেয়ার জন্য চাপ দেয়া হচ্ছে।