cosmetics-ad

বাংলাদেশ থেকে বার্নিকাটের বিদায়

barnikart

মার্কিন রাষ্ট্রদূত হিসেবে প্রায় ৪ বছর বাংলাদেশে দায়িত্ব পালন শেষে নিজ দেশে ফিরে যাচ্ছেন ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের ১৫তম রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া ব্লুম বার্নিকাট। শুক্রবার বিকালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন। পাশাপাশি প্রায় ৩৭ বছরের চাকরি জীবন থেকেও অবসর নিতে চলেছেন এ কূটনীতিক।

প্রায় ৪ বছর বাংলাদেশে দায়িত্ব পালন করেন বার্নিকাট। মার্কিন এ রাষ্ট্রদূত ঢাকায় আসেন ২০১৫ সালের ২৫ জানুয়ারি তিনি ড্যান মজিনার পদে স্থলাভিষিক্ত হন। ৩০ অক্টোবর গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিদায়ী সাক্ষাৎ করেন এ কূটনীতিক।

মার্শা বার্নিকাট বিদায়ের আগে সর্বশেষ সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নয়নই ছিল তার প্রধান লক্ষ্য। সে অনুযায়ীই তিনি কাজ করেছেন।

সাম্প্রতিক রোহিঙ্গা ইস্যুতে বার্নিকাট সোচ্চার ছিলেন। রোহিঙ্গা সংকটকে ওয়াশিংটনের কাছে গুরুত্বসহকারে উপস্থাপন করেন বার্নিকাট। রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তাও অব্যাহত রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র, যার পেছনে তার অবদান কম নয়।

বার্নিকাট বিদায় নেয়ার পরে ঢাকায় ১৬তম মার্কিন রাষ্ট্রদূত হিসেবে যোগ দেবেন রবার্ট আর্ল মিলার। আগামী ৮ নভেম্বর তার আসার কথা রয়েছে। গেল ১৩ অক্টোবর মার্কিন সিনেটে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসেবে অনুমোদনও পেয়েছেন রবার্ট মিলার।

আফ্রিকার দেশ বতসোয়ানায় যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন মিলার। মিলার বতসোয়ানায় মার্কিন রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালনের আগে দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গে মার্কিন কনস্যুলেটে কনসাল জেনারেল ছিলেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্র সরকারের হয়ে ওয়াশিংটন, সান ফ্রান্সিসকো, মিয়ামি ও বোস্টনে কাজ করেছেন। তিনি ভারত, ইরাক, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও এল সালভেদরের মার্কিন দূতাবাসে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।

মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয় ও ইউনাইটেড স্টেটস মেরিন কপস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পর মার্কিন মেরিন কোরে যোগ দেন আর্ল রবার্ট মিলার। এর মধ্যে তিনি ১৯৮১ থেকে ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত মেরিন কোরে এবং ১৯৮৫ থেকে ১৯৯২ পর্যন্ত মেরিন কোর রিজার্ভে অফিসার পদে ছিলেন। মিলার ইংরেজি ছাড়াও ফরাসি, স্প্যানিশ ও ইন্দোনেশীয় ভাষা জানেন।