টেবিলে ৯ লাখ টাকার ‘গিফট’ রেখে চাকরিপ্রার্থীর দৌড়

runঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষক রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ ঘোষকে চাকরির জন্য নয় লাখ টাকা ঘুষ দিতে এসে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) এক শিক্ষার্থী আটক হয়েছেন। রোববার সকাল ১১টার দিকে ঢাবির কলাভবনের বাংলা বিভাগে অধ্যাপক বিশ্বজিৎ ঘোষের অফিসে এ ঘটনা ঘটে।

আটক চাকরিপ্রার্থীর নাম ইলিয়াস হোসেন (৩২)। তিনি ইবিতে অধ্যয়নরত। তার গ্রামের বাড়ি পাবনা জেলার সুজানগর থানার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের মধুপুর গ্রামে। তিনি মো আবদুল হামিদ খান ও সুফিয়া খাতুনের ছেলে।

জানতে চাইলে অধ্যাপক বিশ্বজিৎ ঘোষ বলেন, সকাল ১১টার দিকে একটা ছেলে আসে। সে আমার টেবিলে একটি ব্যাগ রেখে বলে- আপনার জন্য একটি গিফট আছে। ব্যাগে কি আছে জানতে চাইলেও সে না বললে আমি ব্যাগ খুলে দেখি টাকা।

sentbe BT

তিনি বলেন, আমি তাকে ধরে ফেলতে গেলে সে দৌড় দেয়। এসময় কলাভবনের কয়েকজন ছাত্র তাকে ধরে ফেলে আমার অফিসে নিয়ে আসে। পরে পুলিশ ডাকা হয়। আমি তাকে ডিন অফিসে নিয়ে যাই। তারা টাকা গুনে দেখে নয় লাখ। সেখান থেকে তাকে শাহবাগ থানায় সোপর্দ করা হয়।

জানতে চাইলে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি ডিরেক্টর মো. গোলাম সারোয়ার বলেন, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য স্যার নিয়োগ পান গত জুনে। বিভিন্ন পদে নিয়োগের জন্য সার্কুলার দেয়া হয় এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে। ইলিয়াস তিনটি অফিসার পদে আবেদন করেন। তারপর থেকেই বিভিন্নভাবে তিনি চেষ্টা করতে থাকেন।

তিনি আরো বলেন, এর আগেও একবার ইলিয়াস অধ্যাপক বিশ্বজিতকে ১৪ লাখ টাকা ঘুষ দিতে চান এবং নানা সময়ে চাকরি চেয়ে মোবাইলে নানান ধরনের এসএমএস দেন যেগুলোর প্রমাণও উপাচার্যের কাছে আছে।

শাহবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল হাসান বলেন, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে ঘুষ দিতে চাইলে তারা একজনকে ধরে ফেলেন। পরে আমরা গিয়ে তাকে থানায় নিয়ে এসেছি। এখনো মামলা করা হয়নি। মামলার কার্যক্রম চলছে।

সূত্র- পরিবর্তন