sentbe-top

অবশেষে রেহাই পেলেন সন

son-heungএশিয়ান গেমসের ফাইনালে জাপানকে ২-১ গোলে হারিয়ে ফুটবলের সোনা জিতেছে দক্ষিণ কোরিয়া। এই নিয়ে টানা দ্বিতীয়বারের মতো ফুটবলে সর্বোচ্চ সাফল্যের পদক জিতেছে তারা। কিন্তু সবকিছু আসলে ছাপিয়ে গেছে এই স্বর্নপদকের সঙ্গে জড়িয়ে থাকা আরেকটি ঘটনা।

দক্ষিণ কোরিয়া টানা দ্বিতীয়বারের মতো ফুটবলে সোনা জিতেছে হিউ মিন সনের নেতৃত্বে। দলের হয়ে এবার সেরা সাফল্য অর্জন না করতে পারলে তাকে যোগ দিতে হত দেশটির সামরিক দায়িত্বে। দক্ষিণ কোরিয়ার সব প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষকেই জীবনের একটা অংশ পার করতে হয় এই ট্রেনিংয়ে। সেখান থেকে বাঁচার উপায় একটাই, অলিম্পিক বা এশিয়ান গেমসে দেশের হয়ে সাফল্য অর্জন করা।

গতবার দক্ষিণ কোরিয়া এশিয়াডে সোনা জিতলেও সেই দলের অংশ ছিলেন না হিউ মিন সন। টটেনহামের হটস্পার ফরোয়ার্ড জাতীয় দলের হয়ে বিশ্বকাপেও দলকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। জার্মানিকে হারানোর সেই ম্যাচে গোলও করেছিলেন। কিন্তু দেশকে এতো সাফল্য এনে দিলেও একটা জায়গায় মুক্তি মিলছিল না সনের। প্রিমিয়ার লিগ শুরু হয়ে গেলেও, দলের সঙ্গে ছিলেন না। যোগ দিয়েছিলেন দক্ষিণ কোরিয়ার অণূর্ধ্ব-২৩ এশিয়ান গেমসের ফুটবল দলে।

sentbe-adসেই দায়িত্ব থেকে অবশেষে মুক্তি পাচ্ছেন সন। টটেনহাম থেকেও আর ছুটি চাইতে হবে না তাকে। জাপানকে হারাতে অবশ্য কাঠ খড় পোড়াতে হয়েছে দক্ষিণ কোরিয়াকে। ৯০ মিনিট শেষেও খেলা ছিল গোলশূন্য। পরে ৯৩ আর ১০১ মিনিটে দুই গোল দেয় তারা। ১১৫ মিনিটে জাপান এক গোল শোধ দিলেও সন আর মুক্তির মাঝে বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি।

ম্যাচ শেষের বাঁশি বাজার পর সনের উদযাপনই বলে দিচ্ছিল এই জয়টা তার ক্যারিয়ারের জন্য কতোটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল। দেশের পতাকা হাতে দিয়েছেন ল্যাপ অফ অনার, সতীর্থ সবাইকে কোলে তুলে নিয়েছেন আনন্দের আতিশয্যে। অবশেষে মুক্তিটা মিলল সনের, এমন আনন্দ তো তাঁকেই মানায়!

sentbe-top