ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশের সেরা বোলিং এখন খাদিজার

khadijaসুযোগ ছিলো বিশ্বরেকর্ড গড়ার। বিশ্বের মাত্র পঞ্চম বোলার হিসেবে এক ইনিংসে ৭ উইকেট নেয়ার। নিজের বলে নিজেই ক্যাচ ছেড়ে সে সুযোগ হাতছাড়া করেন তিনি। তবে দেশের ইতিহাসের রেকর্ড ঠিকই নিজের নামে করে নিয়েছেন বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের অফস্পিনার খাদিজা তুল কুবরা।

সোমবার কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৯.৫ ওভার বোলিং করে মাত্র ২০ রান খরচায় নিয়েছেন ৬ উইকেট। যা কিনা শুধু নারী ক্রিকেট নয়, পুরুষদের ক্রিকেট মিলিয়েও ওয়ানডেতে বাংলাদেশের পক্ষে সেরা বোলিং ফিগার।

টসে জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা খারাপ করেনি পাকিস্তান। মাত্র ১ উইকেট হারিয়েই ৫০ রান করে ফেলেছিল সফরকারীরা। ১৫তম ওভারে প্রথমবারের মতো আঘাত হানেন খাদিজা। এরপর একে একে পাকিস্তান শিবিরে ত্রাশ ছড়িয়ে দেন এ ডানহাতি স্পিনার।

পাকিস্তান শেষের ৫ উইকেট হারায় মাত্র ১০ রানে। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো পাঁচ উইকেট নেয়া খাদিজা ৯.৫ ওভারে এক মেইডেনের সাহায্যে মাত্র ২০ রান খরচায় ৬ উইকেট নেন।

বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটের ওয়ানডে ফরম্যাটে এর আগে পাঁচ উইকেটও ছিলো না আর কারো। খাদিজা প্রথমবারের মতো পাঁচ উইকেট নিয়ে সেটিকে পরিণত করেন ছয় উইকেটে। ছেলেদের ক্রিকেটে ২৬ রান খরচায় ছয় উইকেট নিয়ে সেরা বোলিং ফিগারের মালিক মাশরাফি বিন মর্তুজা, একই বোলিং ফিগার রয়েছে রুবেল হোসেনেরও।

মাশরাফি-রুবেলের চেয়েও কম, মাত্র ২০ রান খরচায় ৬ উইকেট নিয়ে দেশের ওয়ানডে ইতিহাসের সেরা বোলিং ফিগারটাই নিজের করে নিয়েছেন খাদিজা। নারী ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশের পক্ষে সেরা বোলিং ফিগারটি এতোদিন ছিল রুমানা আহমেদের দখলে।

২০১৩ সালে ভারতের বিপক্ষে ২০ রান খরচায় ৪ উইকেট নিয়েছিলেন রুমানা। যা এখন নেমে গিয়েছে তালিকার তিন নম্বরে। ৩৩ রানে ৪ উইকেট নিয়ে তালিকার তিন নম্বরে রয়েছেন খাদিজাই। এমনকি ৫৬ রান খরচায় ৪ উইকেট নিয়ে তালিকার পঞ্চম নামটিও খাদিজার। ৩৫ রান নিয়ে ৪ উইকেট নেয়া লতা মন্ডল রয়েছেন চারে।