Search
Close this search box.
Search
Close this search box.

যে সুবিধা গুলো পাচ্ছে বঙ্গবন্ধু পরিবার

hasina-familyজাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তাবৃদ্ধি সহ ১৯টি সুবিধা দিতে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। সোমবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক শাখা-৪ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

‘রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে’ সিনিয়র সচিব ড. মো. মোজাম্মেল হক খান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ‘জাতির পিতার পরিবার-সদস্যগণের নিরাপত্তা আইন-২০০৯’ এর ধারা ৪-এর উপধারা (৩) প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সরকার জাতির পিতার পরিবার-সদস্যগণের নিরাপত্তা বিধানের লক্ষ্যে নিম্মলিখিত ব্যবস্থা এ সুবিধাদি প্রদান করবে।

আইন অনুযায়ী ‘পরিবার-সদস্যরা হচ্ছেন- জাতির পিতার জীবিত দুই কন্যা এবং তাহাদের সন্তানাদি’।

সরকার জাতির পিতার পরিবার-সদস্যগণের সার্বক্ষণিক নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা দেবে। নিরাপত্তার জন্য তাদের বাসভবন, ভবনের আশপাশের ভবনে নজরদারি করবে। আবাসস্থলে কোনো ব্যক্তি বা বস্তু ঢোকানোর আগে পরীক্ষা করা হবে। আবাসস্থল থেকে তাৎক্ষণিকভাবে বের হওয়ার জন্য এক বা একাধিক বিশেষ নির্গমন পথের ব্যবস্থা করা হবে। আবাসস্থলে সার্বক্ষণিক প্রয়োজনীয়সংখ্যক নিরাপত্তাকর্মী নিয়োজিত রাখা হবে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, তাদের আবাসস্থলের পাশের কোনো ‘ভবন, স্থাপনা বা অবস্থান’ হতে ‘কোনো প্রকার হুমকি সৃষ্টি করিবার মতো অবস্থা থাকিলে’ তা অপসারণ কিংবা পরিবর্তন করা হবে। আবাসস্থলের চারপাশে সুউচ্চ ভবনে বসবাসকারীদের ওপর সার্বক্ষণিক নজরদারি করা হবে।

chardike-ad

এ ছাড়া তাদের আবাসস্থলে গমনাগমনের পথ যেকোনো ধরনের আক্রমণ থেকে নিরাপদ রাখার ব্যবস্থা, সার্বক্ষণিকভাবে ফায়ার সার্ভির গাড়ি ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম প্রস্তুত থাকবে।

পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সদস্যদের মালিকানাধীন আবাসস্থলের মেরামত, সম্প্রসারণ ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নেবে সরকার। একজন ড্রাইভার ও প্রয়োজনীয় পেট্রলসহ তাদের গাড়ির সুবিধা দেবে সরকার।

বাসভবনে সব সময়ের জন্য স্বয়ংসম্পূর্ণ চিকিৎসা অ্যাম্বুলেন্স রাখা হবে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দেওয়ার জন্য। দেশে-বিদেশে সরকারি খরচে তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে। তাদের গ্যাস, পানি, বিদ্যুৎ ও উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ইন্টারনেটের খরচও দেবে সরকার।

তা ছাড়া তাদের জন্য সরকারি খরচে একজন ব্যক্তিগত সহকারি, দুজন বেয়ারা, একজন বাবুর্চি, একজন মালি ও একজন ঝাড়ুদার নিয়োগ করা হবে।

এসবের বাইরেও অন্য কোনো প্রকার ‘সহায়তা বা আনুষঙ্গিক সরঞ্জাম বা দ্রব্যাদির প্রয়োজন’ হলে সরকারের ‘অন্যান্য মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও সংস্থা’ তা প্রদান করবে বলে প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে।