সততার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন রিকশাচালক ফিরুজ

firoj
ফিরুজ মিয়া পেশায় একজন রিকশাচালক। রাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া এক লাখ টাকা থানায় জমা দিয়েছেন তিনি (বাঁ থেকে দ্বিতীয়)।

রাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া এক লাখ টাকা থানায় জমা দিয়েছেন এক রিকশাচালক। গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলায় গত বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। ওই রিকশাচালকের নাম ফিরুজ মিয়া (৩৭)। তাঁর বাড়ি নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা থানার মইপুকুড়িয়া গ্রামে। ওই গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে তিনি। কয়েক বছর ধরে শ্রীপুরের কেওয়া বাজারের পাশে থাকছেন ফিরুজ।

ফিরুজ মিয়া বলেন, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে তিনি রিকশা নিয়ে মাওনা চৌরাস্তার দিকে যাচ্ছিলেন। এমন সময় রাস্তায় একটি প্যাকেট পড়ে থাকতে দেখে তা তুলে নেন। পরে প্যাকেট খুলে তাতে অনেক টাকা দেখতে পান। তিনি টাকাগুলো নিজের কাছে রেখে মালিককে খুঁজতে থাকেন। পরে মালিককে খুঁজে না পেয়ে রাত সাড়ে নয়টার দিকে থানায় টাকাগুলো জমা দেন তিনি।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, টাকার প্রকৃত মালিক ছিলেন শ্রীপুরের বৈরাগিরচালা গ্রামের মান্নান শিকদার। তিনি টাকা হারিয়ে থানায় জিডি করেছিলেন। রাতেই মান্নান শিকদারকে টাকা বুঝিয়ে দিয়েছে পুলিশ।

শ্রীপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) হেলাল উদ্দিন বলেন, রিকশাচালক টাকা নিয়ে এলে তা যাচাই করে প্রকৃত মালিকের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। টাকার প্রকৃত মালিক তাঁর ভাগনের মাধ্যমে দেড় লাখ টাকা মাওনা চৌরাস্তার এক্সিম ব্যাংকে জমা দিতে পাঠিয়েছিলেন। পথে এক লাখ টাকা হারিয়ে ফেলেছিলেন ওই বাহক। একজন রিকশাচালক এতগুলো টাকা জমা দিয়ে সততার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। টাকার প্রকৃত মালিক খুশি হয়ে রিকশাচালককে ১৫ হাজার টাকা উপহার দিয়েছেন।

সৌজন্যে- প্রথম আলো