sentbe-top

পাসপোর্টের এত রঙ কেন

passportপৃথিবীর একেক দেশের পাসপোর্টের রঙ একেক রকমের। এটি নাগরিকদের জন্য বিদেশে ভ্রমণের কাজে ব্যবহৃত দলিল। জন্মসূত্রে বা অভিবাসনসূত্রে নিজ নিজ দেশ পাসপোর্ট প্রদান করে থাকে। বিভিন্ন দেশের পাসপোর্টের রঙও বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে।

বাংলাদেশের ‘সবুজ’: বাংলাদেশসহ মোট ৪৩টি দেশের রয়েছে সবুজ পাসপোর্ট। দেখা গেছে, বেশির ভাগ দেশের পাসপোর্টের রঙ সবুজ। কারণ, সেই দেশগুলোর সংখ্যাগরিষ্ঠদের ধর্ম ইসলাম। ইসলামে সবুজ রঙ পবিত্র মানা হয় বলেই পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়ার মতো মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলোর পাসপোর্টের রঙ সবুজ।

ইউরোপে ‘লাল’: জার্মানি, ফ্রান্স, পোল্যান্ড ও নেদারল্যান্ডসসহ ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশেরই পাসপোর্ট লাল রঙের। সব মিলিয়ে পৃথিবীর ৬৮টি দেশের রয়েছে লাল রঙের পাসপোর্ট। তবে সেই লালের মধ্যেও রয়েছে নানা শেড।

ভারতের ‘নীল’: অনেকেই নীল রঙের সঙ্গে উন্নয়নকে মেলান। সে কারণেই বিশ্বের ৭৮টি দেশের পাসপোর্ট নীল রঙের। ফিজি বা আফগানিস্তানের পাসপোর্ট হালকা নীল রঙের, অন্যদিকে ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গাঢ় নীল রঙের পাসপোর্ট।

আফ্রিকা মহাদেশের ‘কালো’: এক সময় যুক্তরাজ্যের পাসপোর্টের রঙ ছিল কালো। তবে বর্তমানে তা লাল। পৃথিবীতে কেবল হাতেগোনা কয়েকটি দেশেরই রয়েছে কালো পাসপোর্ট, যার বেশির ভাগই আফ্রিকা মহাদেশের।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বহুরূপী: যেমন খুশি রঙবদলের ভালো উদাহরণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পাসপোর্ট। গোড়ার দিকে মার্কিন পাসপোর্ট লাল রঙের হলেও পরে ১৯৩০ সালে তা সবুজ রঙের হয়। পরে ১৯৭০ সালে, সবুজ বদলে পাসপোর্টের রঙ হয় গাঢ় নীল, অনেকটা ভারতের পাসপোর্টের মতোই

এক দেশেই একাধিক রঙ: একই সময়ে একটি দেশের হতে পারে একাধিক রঙের পাসপোর্ট, এমনও উদাহরণ রয়েছে। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে একাধিক রঙের পাসপোর্টের চল। সাধারণ নাগরিকের পাসপোর্ট নীল রঙের হলেও ডিপ্লোম্যাট বা কূটনীতিকদের পাসপোর্ট সেখানে কালো

ভারত-বাংলাদেশেও তিন রঙের পাসপোর্ট: সাধারণ ভারতীয় নাগরিকের জন্য নীল ও বাংলাদেশি নাগরিকের জন্য বরাদ্দ সবুজ পাসপোর্ট। দুই দেশেরই কূটনৈতিক পাসপোর্টের রঙ লাল, কিন্তু বিশেষ কিছু সরকারি প্রতিনিধির জন্য ভারতে সাদা ও বাংলাদেশে নীল রঙের পাসপোর্ট আছে।

সৌজন্যে- জাগো নিউজ

sentbe-top