উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের সাক্ষী হল বিমানকর্মীরা

north-koreaহংকংয়ের বিমান সংস্থা ক্যাথি প্যাসিফিক এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটের ক্রুরা ক্ষেপণাস্ত্র উড়তে দেখার বিরল অভিজ্ঞতা লাভ করেছে। গত ২৯ নভেম্বর সান ফ্রান্সিসকো থেকে হংকংগামী ফ্লাইটে জাপানের সীমানা দিয়ে যাওয়ার সময় ক্রুরা আকাশে একটি ক্ষেপণাস্ত্র উড়ে যেতে দেখতে পাওয়ার কথা জানান।

পরে এয়ারলাইন্স কোম্পানি সোমবার বিবিসি কে জানায়, সেটি উত্তর কোরিয়ার নিক্ষেপ করা পরীক্ষামূলক ক্ষেপণাস্ত্র হয়ে থাকবে এবং তাদের কর্মীরা সেটিই দেখতে পেয়েছে। এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ বিবিসি’কে বলেছে, ‘খুব সম্ভবত ক্ষেপণাস্ত্রটি বায়ুমণ্ডলে পুনরায় প্রবেশের সময়’ উড়োজাহাজের ক্রুরা সেটি দেখতে পান।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টে ক্যাথি প্যাসিফিকের জেনারেল ম্যানেজার অব অপারেটিং মার্ক হোয়েই বলেন, “সিএক্স৮৯৩ ফ্লাইটের ক্রুরা ম্যাসেজ পাঠিয়ে জানিয়েছে ‘আজ আমরা উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র উড়ে যেতে এবং আমাদের বর্তমান অবস্থানের কাছে বিস্ফোরিত হতে দেখেছি’।”

যুক্তরাষ্ট্র থেকে দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলগামী দুইটি উড়োজাহাজের ক্রুরাও ক্ষেপণাস্ত্রটি দেখেছে বলে খবর প্রকাশ পেয়েছে।

গত ২৯ নভেম্বর একটি নতুন আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালায় উত্তর কোরিয়া। ক্ষেপণাস্ত্রটি যুক্তরাষ্ট্রের যে কোনও স্থানে আঘাত হানতে সক্ষম বলে দাবি দেশটির।

মার্কিন বিজ্ঞানীদের একটি সংগঠনও বলছে, উত্তর কোরিয়ার এ ক্ষেপণাস্ত্র যুক্তরাষ্ট্রের যে কোনও অংশে আঘাত হানতে সক্ষম। নিয়মানুযায়ী, ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানোর আগে সময় এবং স্থানের আগাম ঘোষণা দিতে হয়। কিন্তু উত্তর কোরিয়া এ নিয়মের তোয়াক্কা করে না।