cosmetics-ad

শিগগিরই প্রবাসীরাও ভোট দিতে পারবেন

nurul-islam-bsc

সরকারি সফরে বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে অবস্থান করছেন বাংলাদেশের প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নূরুল ইসলাম বিএসসি। তিনি অস্ট্রেলিয়া ও বাংলাদেশের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে কথা বলেছেন। তিনি বলেন,’দেশের বাইরে অবস্থানরত বাংলাদেশি নাগরিকদের ভোট গ্রহণের সুবিধা শিগগিরই চালু হবে।’ এছাড়া মন্ত্রী সাম্প্রতিক অন্যান্য প্রসঙ্গ নিয়েও কথা বলেন।

অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের প্রায় সব দেশেই প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকরা রয়েছেন। তবে দেশের বাইরে অবস্থানের কারণে বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচনে প্রবাসীদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করা সম্ভব হচ্ছে না। বাংলাদেশ সরকার প্রায় সকল ক্ষেত্রেই ডিজিটাল সুবিধা দিয়ে থাকলেও প্রবাসীদের ভোটাধিকার বাস্তবায়নে দীর্ঘদিন ধরেই পরিকল্পনা পর্যায়েই রয়েছে। সরকার বেশ গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‌’জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচনে প্রবাসীদের মূল্যবান ভোট ভেস্তে যাচ্ছে। তাই দেশের পাশাপাশি প্রবাসেও একযোগে ভোট প্রদানের পদ্ধতি চালু করতে সরকার অক্লান্ত শ্রম দিয়ে যাচ্ছে।’ আগামী নির্বাচনের আগেই সরকার প্রবাসীদের ভোট গ্রহণ সুবিধা চালু করবে বলে আশাবাদী প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী।

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিসহ প্রধান শহরগুলোতে বাংলাদেশের শীর্ষ রাজনৈতিক দলগুলোর শাখা হিসেবে দাবি করা উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বিভিন্ন সংগঠন রয়েছে। দলের নিয়মনীতি মেনে ও অনুমোদন নিয়েই এসব শাখা গড়ে উঠেছে বলেই দাবি তাদের। তবে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ দেশের বাইরে এমন কোনো রাজনৈতিক দলের শাখা বা সংগঠনের অনুমোদন বা নিয়ন্ত্রণ করে না বলেই জানিয়েছেন প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘দেশের বাইরে এসব দলগুলো সরকার কিংবা আওয়ামীলীগের অধীনে গঠিত হয় না। কোনো ব্যক্তি বিশেষের ইচ্ছায় গঠিত হয় এসব সংগঠনগুলো। যেহেতু সরকার বা আওয়ামীলীগ দেশের বাইরের এসব দল গঠন করেনি বা অনুমোদন দেয়নি তাই তা সরকার বা দলের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। তবে তিনি বলেন,’অনেক সময় আওয়ামীলীগের সহযোগী হিসেবে কিছু সংগঠন কাজ করে।’

গত কয়েকদিন আগে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে বাংলাদেশ হাই কমিশনের একটি নতুন স্থায়ী মিশন চালুর অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। নতুন এই স্থায়ী মিশনের গঠনগত কাজ শুরু হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, অনুমোদনের এক মাসের মধ্যেই স্থায়ী মিশন বা কনস্যুলার সার্ভিস চালুর নির্দেশ রয়েছে। সিডনির বসবাসরত বাংলাদেশিদের সুবিধায় সরকার আরও দ্রুত তা বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়া নতুন স্থায়ী মিশনে নীতিসম্মত সকল সেবা দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

অস্ট্রেলিয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশিরা দীর্ঘদিন ধরেই দেশে অর্থ পাঠানোর আরও সহজ কোনো মাধ্যমের দাবি জানিয়ে আসছেন। অনেকেই বলছেন, বাংলাদেশে থাকা বিভিন্ন মোবাইল ব্যাংকিং এর মতো অর্থ প্রেরণের ব্যবস্থা যদি সরকার গ্রহণ করতে পারে তবে দেশে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের হার আরও বাড়বে। প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী নূরুল ইসলাম বিএসসি এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘সরকার ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় বৈদেশিক মুদ্রা গ্রহণের পদ্ধতি আরও সহজ করার বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। বৈদেশিক মুদ্রা গ্রহণের যে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো রয়েছে তাদের কার্যবিধি আরও দ্রুত ও সহজলভ্য করতে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করছে।’

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার সরকার জনপ্রিয় কয়েকটি ভিসা বিলোপসহ নাগরিকত্ব প্রদানের বিভিন্ন আইনের ক্ষেত্রে পরিবর্তন এনেছে। ফলে ভিসা ও নাগরিকত্ব প্রাপ্তি নিয়ে আবেদনকারী ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের নানা জটিলতার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। তবে সরকারের পক্ষ থেকে বাংলাদেশিদের সকল সমস্যার সমাধান দূতাবাস করবে বলেই জানিয়েছেন প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী। তিনি বলেন, দূতাবাস যদি মনে করে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো সহযোগিতার প্রয়োজন রয়েছে, তবে সরকারকে অবগত করলেই বাংলাদেশ সরকার তা নিয়ে কাজ করবে।’ তবে অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাসে নিযুক্ত কর্মকর্তারা নিজ দক্ষতায় এখন পর্যন্ত সব দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন বলেও তাদের ধন্যবাদ জানান মন্ত্রী। তিনি আরও জানান, বাংলাদেশ সরকার অস্ট্রেলিয়ার সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখছে।

অস্ট্রেলিয়ার প্রবাসী বাঙালিদের কর্ম দক্ষতা ও সহযোগী মনোভাবের প্রশংসা করে নূরুল ইসলাম বিএসসি বলেন, ‘বিশ্বে অস্ট্রেলিয়ার প্রবাসী বাংলাদেশিদের বেশ সুনাম রয়েছে। বিভিন্ন দেশের অনেকের কাছেই অস্ট্রেলিয়ার প্রবাসী বাংলাদেশিদের দক্ষতা, মেধা ও সহায়ক মনোভাবের প্রশংসা শুনেছি।’ অস্ট্রেলিয়ার আইন-কানুন মেনে এদেশে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রেখে বাংলাদেশের নাম আরও মহিমান্বিত করার জন্য প্রবাসীদের প্রতি আহ্বানও জানান তিনি।