sentbe-top

শেষ মুহূর্তের গোলে বেঁচে গেল জার্মানি

germanyপ্রথম ম্যাচে মেক্সিকোর কাছে হেরে বিষ্ময়ের জন্ম দিয়েছিল চারবারের চ্যাম্পিয়নরা। এবারের বিশ্বকাপে তখন পর্যন্ত এটিই যেন ছিল সবচেয়ে বড় অঘটনা। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে এসেই নিজেদের আসলরূপে ফিরেছে জার্মানি। সুইডেনকে ২-১ গোলে হারিয়ে দিয়ে জানান দিয়েছে, তারা আছে।

এই জয়ের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠার স্বপ্নটাকেও জিইয়ে রাখল তারা। যদিও এর জন্য তাদেরকে নিজেদের ও সুইডেনের তৃতীয় ম্যাচ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

ম্যাচের শুরু থেকেই দারুণ আক্রমণাত্মক ছিল জার্মানি। খেলেছে গতিশীল, ছন্দময় ও রোমাঞ্চকর ফুটবল। খেলার ফলাফল দিয়ে অবশ্য ম্যাচে তাদের আধিপত্যের চিত্র পুরো বুঝা সম্ভব নয়। একটি পরিসংখ্যান কিছুটা ধারণা দিতে পারে। ম্যাচের প্রথম ১০ মিনিটেই জার্মানি যেখানে পাস দিয়েছে ১২২টি, সেখানে সুইডেনের পাস ছিল ৬টি।

জার্মানির দুরন্ত শুরু সত্ত্বেও ম্যাচে অবশ্য সুইডেনই প্রথম এগিয়ে গিয়েছিল। আর ওই গোল খেয়ে যেন দ্বিগুণ তেতে উঠেছিল জার্মানি। চেপে ধরেছিল সুইডেনকে। সারাক্ষণ টটস্ত করে রেখেছিল তাদের রক্ষণভাগকে।

শনিবার সোচির ফিশৎ স্টেডিয়ামে ‘এফ’ গ্রুপের রোমাঞ্চকর ম্যাচে প্রথমে গোলের একটা দারুণ সুযোগ পেয়েছিল সুইডেন। দ্বাদশ মিনিটে বল নিয়ে দ্রুত ফাঁকা ডি-বক্সে এগিয়ে গিয়েছিলেন সুইডিশ ফরোয়ার্ড মার্কাস বার্গ। পেছন থেকে জেরোম বোয়াটেংয়ের ট্যাকলে পড়ে যান তিনি। সুইডেন পেনাল্টির জোরালো আবেদন জানালেও তা নাকচ করে দেন রেফারি। ভিএআর প্রযুক্তিরও সহায়তা নেননি।

খেলার ধারার বিপরীতে ৩২তম মিনিটে দুর্দান্ত গোলে সুইডেনকে এগিয়ে নেন তইভনেন। মাঝমাঠে ক্রুস ভুল পাস দিয়ে বসেন। সতীর্থের কাছ খেকে বল পেয়ে ভিক্তর ক্লসন উঁচু করে বাড়ান ডি-বক্সে। বুক দিয়ে বল নামিয়ে ডান পায়ের টোকায় আগুয়ান মানুয়েল নয়ারের মাথার উপর দিয়ে জালে পাঠান তইভনেন।

নাকে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়া ডিফেন্ডার আন্টোনিও রুডিগারের জায়গায় নামা মিডফিল্ডার ইলকাই গিনদোয়ানের শট ৪১তম মিনিটে ঝাঁপিয়ে কোনোমতে ফিরিয়ে দেন সুইডেনের গোলরক্ষক রবিন ওলসেন।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে নয়ারের নৈপুণ্যে ব্যবধান বাড়েনি। সেবাস্তিয়ান লারসনের ক্রসে বার্গের হেড ঝাঁপিয়ে দারুণ সেভ করেন জার্মান গোলরক্ষক।

৭৫তম মিনিটে একটি ক্রস বিদমুক্ত করতে গিয়ে উল্টো নিজেদের জালেই পাঠিয়ে দিচ্ছিলেন সুইডেনের আন্দ্রিয়াস গ্রাংকভিস্ত। তবে বল একটুর জন্য বাইরে দিয়ে যায়।

৮২তম মিনিটে বোয়াটেং দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখলে বাকি সময় ১০ জন নিয়ে খেলে জার্মানি। তাতেও ছন্দপতন হয়নি তাদের খেলায়।

৮৯তম মিনিটে গোমেজের হেডে ফিস্ট করে বল ক্রসবারের উপর দিয়ে পাঠান সুইডিশ গোলরক্ষক। এরপর যোগ করা সময়ের পঞ্চম মিনিটে ক্রুসের বুদ্ধিদীপ্ত ওই গোল। প্রথমেই শট না নিয়ে বলে দেন আলতো টোকা। সামনে থাকা রয়েস বল থামাতেই বাঁকানো শটে দূরের পোস্ট দিয়ে বল জালে পাঠান রিয়াল মাদ্রিদের এই মিডফিল্ডার।

আগামী বুধবার নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে খেলবে জার্মানি। একই সময়ে মেক্সিকোর মুখোমুখি হবে সুইডেন।

sentbe-top