cosmetics-ad

বিদেশে মৃত্যুবরণকারী কর্মীদের পরিবারকে প্রায় ১২৫ কোটি টাকা আর্থিক অনুদান

expat

সরকার চলতি বছর বিদেশে বৈধভাবে কর্মরত মৃত্যুবরণকারী ৪ হাজার ৩৯৪ ব্যক্তির পরিবারকে ১২৪ কোটি ৬৪ লাখ ৪৪ হাজার ৮৬২ টাকা আর্থিক অনুদান প্রদান করেছে। বিদেশে বৈধভাবে গমণকারী বা বৈধভাবে কাজ করে মৃত্যুবরণ করলে প্রত্যেক পরিবারকে ওয়েজ আর্নার কল্যাণ বোর্ড হতে ৩ লাখ করে আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়।

ওয়েজ আর্নার কল্যাণ বোর্ডের পরিচালক মো. শরিফুল ইসলাম জানান, সরকার প্রবাসী কর্মীর কল্যাণ নিশ্চিতকরণে ২৮টি বিদেশী মিশনের মাধ্যমে কাজ করছে। বর্তমানে বিশ্বের ১৬২টি দেশে ১ কোটি ২০ লাখ বাংলাদেশের কর্মী কর্মরত রয়েছেন। তাদের পরিবারের ৪ কোটি সদস্যদের কল্যাণে ওয়েজ আর্নার কল্যাণ বোর্ড কাজ করছে। প্রবাসীদের পরিবারের সদস্যদের কল্যাণে ‘প্রবাসবন্ধু’ নামে একটি কল সেন্টার সার্বক্ষণিকভাবে কাজ করছে।

তিনি বলেন, বিদেশে বৈধভাবে কর্মরত মৃত্যুবরণকারী প্রত্যেক পরিবারকে দাফন সম্পন্ন করতে ৩৫ হাজার করে টাকা প্রদান করা হয়। চলতি বছর অক্টোবর পর্যন্ত ২ হাজার ৪৩৪ জনকে ৮ কোটি ৫১ লাখ ৯০ হাজার টাকা প্রদান করা হয়েছে। চলতি বছর অক্টোবর পর্যন্ত বিদেশে বৈধভাবে কর্মরত মৃত্যুবরণকারী ৪ হাজার ৩৯৪টি পরিবারকে ১২৪ কোটি ৬৪ লাখ ৪৪ হাজার ৮৬২ টাকা আর্থিক অনুদান প্রদান করেছে।
তিনি বলেন, চলতি বছর অক্টোবর পর্যন্ত প্রবাসে মৃত্যুবরণকারী ৯৯১ জন কর্মীকে মৃত্যুজনিত কারণে ক্ষতিপূরণ বাবদ নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ২৪ কোটি ৬২ লাখ ৯২ হাজার ২৮৯ টাকা বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে আদায় করে দেয়া হয়েছে। এ টাকা মৃত্যুবরণকারী ওয়ারিশগণের কাছে যথাযথভাবে বিতরণ করা হয়েছে। এদিকে সরকার আগামী পাঁচ বছরে বাংলাদেশ থেকে ৩০ লাখ দক্ষ কর্মী বিদেশে প্রেরণ করা হবে। ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনকে সামনে রেখে সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় বাংলাদেশের অভিবাসন কর্মসূচি যথাযথভাবে বাস্তবায়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে ।

জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক মো. সেলিম রেজা জানান, সরকার দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতে ৮২৫৭২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ২৭টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং ২১৪৫২ লাখ টাকা ব্যয়ে ৫টি ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজী স্থাপন করা হয়েছে। আরো ৪১টি উপজেলায় ৫০টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

শরিফুল ইসলাম আরো জানান, দেশের ৬৪টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং ৬টি ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজীর মাধ্যমে ১ লাখ ২০ হাজার কর্মীকে দক্ষতা উন্নয়ন এবং ১ লাখ ৩০ হাজার বিদেশগামী কর্মীকে প্রাক বহির্গামী প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। সরকার দক্ষতা উন্নয়নে প্রশিক্ষণের মান আন্তর্জাতিক পর্যায়ে উন্নীত করার লক্ষ্যে যুক্তরাজ্য ভিত্তিক সনদায়ন সংস্থা ‘ সিটি এন্ড গিল্ডস’ এর অনুমোদন নিয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করছে বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, সরকার অস্ট্রেলিয়া, রাশিয়া, থাইল্যান্ড এবং মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নতুন শ্রম বাজারে বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি রফতানি করার জন্য সরকার ব্যাপক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সউদী আরব, মালয়েশিয়া ও কাতারে যাতে বিনা খরচে বাংলাদেশের কর্মীরা যেতে পারেন তারও উদ্যোগ নেয়া হয়েছে । গত জানুয়ারি থেকে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ৭ লাখ ২২ হাজার ১০০ জন বাংলাদেশির চাকুরি হয়েছে বছর শেষে এই সংখ্যাটা সাড়ে সাত লাখ ছাড়িয়ে যাবে। দেশে প্রতিবছর ২০ লাখেরও বেশি পুরুষ ও মহিলা কর্মী শ্রমবাজারে যুক্ত হচ্ছে। গত জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত সৌদি আরবে গেছেন এক লাখ ২০ হাজার শ্রমিক। বাসস।