cosmetics-ad

জীবিতকে মৃত দেখিয়ে পুলিশের প্রতিবেদন

bbaria

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় খরচাপাতি (ঘুষ) না দেয়ায় মো. আজাদ হোসেন ভূঁইয়া নামে এক জীবিত ব্যক্তিকে মৃত দেখিয়ে পুলিশ প্রতিবেদন দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে ওই ব্যক্তির হজে যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। হজে যাওয়ার লক্ষ্যে পুলিশ ক্লিয়ারেন্সে অন্তর্ভুক্তির জন্য একাধিকবার থানা পুলিশের কাছে ধরনা দিয়েও কোনো সুরাহা হয়নি। পুলিশের এ ধরনের প্রতিবেদনকে চ্যালেঞ্জ করে ১১ জুন উচ্চ আদালতে একটি রিট পিটিশন করেছেন আজাদ হোসেন ভূঁইয়া।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আখাউড়া উপজেলার দক্ষিণ ইউনিয়নের বড়কুড়িপাইকা গ্রামের মৃত সাত্তার ভূঁইয়ার ছেলে আজাদ হোসেন ভূঁইয়া এ বছর হজে যাওয়ার জন্য নিবন্ধন করেছিলেন। তার পাসপোর্ট নম্বর -বিএন০১১৮০২১, হজের পিআইডি নম্বর -০০৮০২৭২। তৎকালীন আখাউড়া থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ও বর্তমানে কুমিল্লার দাউদকান্দি মডেল থানায় কর্মরত আবুল কালাম ফোন দিয়ে আজাদকে থানায় যেতে বলেন।

কিন্তু তিনি জরুরি কাজে ঢাকায় ব্যস্ত থাকায় এসআই আবুল কালামের সঙ্গে দেখা করতে পারেননি। কয়েকদিন পর এসআই কালাম ফের মোবাইল ফোনে তাকে জানান হজে যাওয়ার নিবন্ধনের জন্য পুলিশ প্রতিবেদন দিতে হবে। তাকে থানায় দেখা করে কিছু খরচাপাতি দিতে বলেন এসআই কালাম।

এ ব্যাপারে আজাদ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, এসআই কালাম আমার বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে বলে থানায় গিয়ে খরচাপাতি দিতে বলেন। তবে আমি ওইসব মামলা থেকে জামিনে আছি জানিয়ে তাকে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স দেয়ার অনুরোধ করি। এতে এসআই কালাম ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, খরচাপাতি না দিলে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স দেয়া যাবে না। পরবর্তীতে আজাদ জানতে পারেন তাকে মৃত দেখিয়ে প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

এ ব্যাপারে এসআই আবুল কালাম জানান, আজাদের পুলিশ ক্লিয়ারেন্সের বিষয়টি আসলে কম্পিউটারের ভুল। তবে পরবর্তীতে ভুল সংশোধন করে প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে।