আইপিএলের ইতিহাসে সবচেয়ে বাজে অধিনায়ক কোহলি

kohliপ্রতি মৌসুমেই নামকড়া সব তারকা নিয়ে দল গড়ে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু। কিন্তু টুর্নামেন্ট শেষে দেখা যায় নিচের সারিতে পড়ে রয়েছে তারা। যার ব্যতিক্রম ঘটেনি চলতি আসরেও। এখনো পর্যন্ত ১০ ম্যাচ খেলে মাত্র ৩টিতে জিতেছে ব্যাঙ্গালুরু। সবশেষ ম্যাচে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে ১৪৬ রানও তাড়া করতে পারেনি বিরাট কোহলির দল।

এই হারে আইপিএলের ইতিহাসের নিকৃষ্টতম অধিনায়কের তকমা সেঁটেছে কোহলির গায়ে। আইপিএলের ইতিহাসে কমপক্ষে ৫০টি ম্যাচে অধিনায়কত্ব করা অধিনায়কদের মধ্যে সবচেয়ে কম জয়ের হার কোহলিরই। ২০১১ সালের আসর থেকে ব্যাঙ্গালুরুকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন ভারতীয় অধিনায়ক। হায়দরাবাদের বিপক্ষে ম্যাচসহ মোট ৯২টি ম্যাচে অধিনায়ক ছিলেন তিনি।

কোহলির অধীনে খেলা ৯২ ম্যাচের মধ্যে ৪২টিতে জয় পেয়েছে ব্যাঙ্গালুরু। শতকরা হিসেবে যা মাত্র ৪৫.৬৫ শতাংশ। আইপিএলের ইতিহাসে কমপক্ষে ৫০ ম্যাচে অধিনায়কত্ব করা আর কোনো অধিনায়কের এতো কম জয়ের হার নেই। ৪২টি ম্যাচে জয় পাওয়া কোহলি হেরেছেন ৪৭টিতে, ৩টি ম্যাচ হয়েছে পরিত্যক্ত।

কোহলিসহ আইপিএলে কমপক্ষে ৫০টি ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দেয়া অধিনায়কের সংখ্যা আটজন। তারা হলেন- মহেন্দ্র সিং ধোনি, গৌতম গম্ভীর, বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা, অ্যাডাম গিলক্রিস্ট, শেন ওয়ার্ন, বিরেন্দর শেবাগ এবং শচীন টেন্ডুলকার।

এই ৮ অধিনায়কের মধ্যে সবচেয়ে বেশি জয়ের হার মহেন্দ্র সিং ধোনির। আইপিএল ইতিহাসের সর্বোচ্চ ১৫৩টি ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছেন তিনি, তার অধীনে ইতিহাসের সর্বোচ্চ ৯২টি জয় পেয়েছে দল। জয়ের শতকরা হার ৫৯.২১ শতাংশ। ধোনি ছাড়া আর কেবল গৌতম গম্ভীরের রয়েছে একশোর বেশি ম্যাচে নেতৃত্ব দেয়ার রেকর্ড। তার নেতৃত্বে ১২৯ ম্যাচ খেলে ৭১টিতে জিতেছে দলগুলো, জয়ের হার শতকরা ৫৫.৪২ শতাংশ।